কেন্দুয়া বিজিবি সদস্যর বিরুদ্ধে নারীনির্যাতন ও চুরির মামলা

আপডেটঃ ৯:১১ অপরাহ্ণ | মে ০৬, ২০২১

নেত্রকোনা প্রতিনিধিঃ নেত্রকোনার  কেন্দুয়ায় গত ৩ বছর পূর্বে বিজিবি সদস্য হামিদুর রহমান  হাসেম) ২৮ পিতা ফজলুর রহমান সাং গগডা ভুইয়া পাড়া মোজাফর পুর ইউনিয়নের বাসিন্দা  নেত্রকোনা সরকারী কলেজের      রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের ফাইনাল  ইয়ারের ছাত্রী  কেন্দুয়া সদরের  মাকসুদাকে পারিবারিক ভাবে বিয়ে করে। বিয়ের কিছু দিন পর থেকেই নানা অজুহাতে যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে। ফিসারিস ব্যবসার নামে মেয়ের বাবার নিকট থেকে ৭ লক্ষ টাকা নেয়।এই টাকা ফেরত চাইলে আরো টাকা নেওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে। টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তার স্ত্রী কে শাশুড়ি ছেলে মিলে নির্যাতন করে।  মেয়ে এই নির্যাতনের বিষয়টি লিখিত ভাবে বিজিবি মহাপরিচালক বরাবর অভিযোগ জানায়। এতে সে ক্ষিপ্ত ছুটি নিয়ে বাড়ীতে এসে ৫ মে দুপুরে মেয়ের বাবার বাসায় তার বড় ভাই কাশেম কে নিয়ে এসে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করে মেয়েকে জোর পূর্বক ভাবে হত্যার উদ্দে্শে  তুলে নেওয়ার চেষ্টা করলে।  মেয়ে যাইতে না চাইলে মেয়েকে মারপিট  করতে থাকলে  মেয়ের  মা,ছোট ভাই বয়স ১২ বাধা দিলে তাদের উপর ও চড়াও হয়। তাদেরকে ও জখম করে কৌশলে পালিয়ে যাওযার সময় ঘরে রক্ষিত নগদ ১লক্ষ টাকা, ৭ ভরি স্বর্ণ ও একটি এনড্রোয়েট মোবাইল সেট নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে মেয়ের মা,বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কেন্দুয়া থানা অফিসার ইনচার্জ কাজী শাহনেওয়াজ জানান আমরা বিজিবি সদস্য হামিদুর রহমানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নিব।

 

 

সি এন এন নিউজ/জামান