ড্রামের ভেতর লাশটি নার্সের, হত্যায় পুলিশ কনস্টেবল: পিবিআই

আপডেটঃ ৮:৫৫ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ১৯, ২০২১

রাজশাহী :রাজশাহীতে ড্রামের ভেতর থেকে উদ্ধার করা তরুণীর লাশের পরিচয় মিলেছে। তার নাম ননিকা রাণী রায় (২২)। পেশায় তিনি নার্স। ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার মিলনপুর গড়েয়া গ্রামে তার বাড়ি। বাবার নাম নিপেন চন্দ্র বর্মণ। রাজশাহী নার্সিং ইনস্টিটিউট থেকে ডিপ্লোমা করেছেন ননিকা।

এই তরুণীকে হত্যায় জড়িত পুলিশের এক কনস্টেবল। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্তে এসব বেরিয়ে এসেছে। রাজশাহী পিবিআই অভিযুক্ত কনস্টেবলসহ চারজনকে গ্রেপ্তারও করেছে। ওই নার্স অবিবাহিত ছিলেন। অভিযুক্ত পুলিশ কনস্টেবলের সাথে তার সাত-আট বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

এই কনস্টেবলের নাম নিমাই চন্দ্র সরকার (৪৩)। তিনি পাবনার আতাইকুলা উপজেলার চরাডাঙ্গা গ্রামের মৃত হেমান্ত সরকারের ছেলে। নিমাই রাজশাহীতে রেলওয়ে পুলিশে কর্মরত ছিলেন। গত ৬ এপ্রিল নগরীর তেরোখাদিয়া এলাকায় স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে একটি ভাড়া বাসায় উঠেছিলেন নিমাই ও ননিকা। তারা লিভ টুগেদার করছিলেন বলে জানিয়েছেন পিবিআই কর্মকর্তারা।

গত শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) সকালে রাজশাহী মহানগরীর উপকণ্ঠ সিটিহাট এলাকা থেকে ননিকার লাশ উদ্ধার করা হয়। লাশটি ছিল একটি ড্রামের ভেতর। সেদিন তার পরিচয় জানা যায়নি। এ নিয়ে নগরীর শাহমখদুম থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে একটি মামলা করা হয়। থানা পুলিশ বিষয়টির তদন্ত শুরু করে। পাশাপাশি ছায়া তদন্ত করছিল পিবিআই। শেষে পিবিআই এই তরুণীর পরিচয় উদঘাটনের পাশাপাশি ঘাতকদেরও গ্রেপ্তার করল।

পুলিশ কনস্টেবল নিমাই ছাড়া গ্রেপ্তার অন্যরা হলেন- নগরীর কাশিয়াডাঙ্গা থানার আদারীপাড়া মহল্লার জয়নাল আবেদীনের ছেলে কবির আহম্মেদ (৩০), রাজপাড়া থানার বিলশিমলা এলাকার সতীশ রায়ের ছেলে আবদুর রহমান (২৫) এবং শ্রীরামপুর টি-বাঁধ এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে সুমন আলী (৩৪)। আবদুর রহমান মাইক্রোবাসের চালক। তিনি আগে হিন্দু ছিলেন। তখন তার নাম ছিল সঞ্জয় রায়। তার মাইক্রোবাসে করেই লাশ ফেলে আসা হয়েছিল।

সোমবার পিবিআইয়ের রাজশাহী কার্যালয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আযাদ জানান, কনস্টেবল নিমাই বিবাহিত। তার স্ত্রীর নাম বুলবুলি রাণী দাস। তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত। স্বামীর সঙ্গে সম্পর্ক ভালো নয় বলে এক সন্তানকে নিয়ে তিনি আলাদা থাকেন। আর গত ৬ এপ্রিল ননিকাকে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে বাসা ভাড়া করেছিলেন নিমাই। ননিকা তাকে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছিলেন। সে কারণেই তাঁকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়।

হত্যার সময় নিমাইয়ের বন্ধু কবির আহম্মেদ ও সুমন আলী ননিকার হাত-পা চেপে ধরেছিলেন। আর নিমাই গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করেন। পরে বাজার থেকে চাল রাখা একটি ড্রাম কিনে আনেন। সেই ড্রামে লাশ ঢুকিয়ে মাইক্রোবাসে তুলে সেটি নির্জনে ফেলে আসা হয়।

পরিবার জানায়, ননিকা সদ্য নার্সিং পাস করেছেন। এরপর রাজশাহী শহরের একটি ক্লিনিকে চাকরি নিয়েছিলেন। একটি ছাত্রীনিবাসে থাকতেন নগরীর পাঠানপাড়া এলাকায়। সরকারি চাকরির জন্য পরীক্ষাও দিয়েছিলেন। মৌখিক পরীক্ষার জন্য তিনি অপেক্ষা করছিলেন। পুলিশ কনস্টেবল নিমাইয়ের সঙ্গে গিয়ে আলাদা বাসায় ওঠার বিষয়টি পরিবার জানত না। হত্যাকাণ্ডের পর তারা এটি জেনেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীর্ঘ দিন ধরেই রাজশাহীতে কর্মরত ছিলেন কনস্টেবল নিমাই। সাত বছর ধরে আছেন রাজশাহী রেল পুলিশে। এর আগে তিনি রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) গোয়েন্দা শাখায় (ডিবি) ছিলেন। সে সময় ডিবি কার্যালয় এলাকার এক কলেজ ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে তার নগ্ন ভিডিও ধারণ করেছিলেন। ভিডিওটি কম্পিউটারের দোকান থেকে ছড়িয়ে পড়ে। তখন তাকে বরখাস্ত করা হয়। পরবর্তীতে নানা কৌশলে চাকরি ফিরে পেয়ে রেল পুলিশে যোগ দেন। এবার আগের চেয়েও ভয়াবহ ঘটনা ঘটালেন এই কনস্টেবল।

পিবিআই কর্মকর্তা আবুল কালাম আযাদ সোমবার দুপুর ২টা ৪০ মিনিটে জানান, দুপুরে শাহমখদুম থানা পুলিশ হত্যা মামলাটি তাদের কাছে হস্তান্তর করেছে। এরপর এখন আসামিদের আদালতে তোলার জন্য গাড়িতে তোলা হচ্ছে। আসামিরা পিবিআইয়ের কাছে প্রাথমিকভাবে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার সব বিষয় স্বীকার করেছেন। তারা আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিও দিতে পারেন। তিন দিনেই এ হত্যাকাণ্ডের সমস্ত বিষয় উদঘাটন করা সম্ভব হয়েছে। দ্রুতই আদালতে এ মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করা হবে বলেও জানান তিনি।