বীর মুক্তিযোদ্ধা আয়েশা খানমের দাফন সম্পন্ন

আপডেটঃ ১২:০৯ পূর্বাহ্ণ | জানুয়ারি ০৩, ২০২১

মোনায়েম খান, নেত্রকোনা প্রতিনিধি :  নেত্রকোনার সন্তান বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোছা. আয়েশা খানম আর নেই। আজ শনিবার ভোরে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি……..রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। তিনি এক মেয়ে রেখে গেছেন। ওই দিন বিকেলে নেত্রকোনা জেলা শহরের পূর্ব কাটলী গ্রামে নেওয়া হলে তাঁকে শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে পূর্ব কাটলীতে অন্বেষা স্কুল মাঠে জানাজা শেষে স্বামী মরহুম গোলাম মুর্তজা খানের কবরের পাশে পারিবারিক কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁর লাশ দাফন করা হয়।
মরহুমা আয়েশা খানমের ভাই নেত্রকোনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোহাম্মদ খান পাঠান বিমল জানান, দীর্ঘদিন ধরে আয়েশা খানম ক্যান্সার রোগে ভোগছিলেন। শনিবার রাতে বেশী অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ওইদিন ভোরে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর মরদেহ ঢাকার বারডেম হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়। সকাল সাড়ে ৮টায় মরদেহ কর্মস্থল বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ নেওয়া হলে তাঁর সহকর্মীরা শেষ শ্রদ্ধা জানান।
আয়েশা খানম নেত্রকোনা সদর উপজেলার কালিয়ারা গাবরাগাতী গ্রামে ১৯৪৭ সালের ১৮ অক্টোবর জন্ম গ্রহন করেন। তাঁর বাবা গোলাম আলী খান সমাজ সেবক এবং মা জামাতুন্নেসা খানম গৃহীনি। হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশন বাতিলের দাবিতে ১৯৬২ সালের ছাত্র আন্দোলন থেকেই ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে জড়িত আয়েশা খানম। ১৯৬৬ সাল থেকে ছাত্র আন্দোলেন পুরোপরি সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে পড়েন তিনি। ফলে ঊনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান, সত্তরের নির্বাচন এবং একাত্তরের অসহযোগ আন্দোলনসহ স্বাধীনতা যুদ্ধের পথে এগিয়ে যেতে যে সব আন্দোলন- সংগ্রাম সংঘটিত হয়েছিল সবগুলোতেই তিনি সামনের সারিতে ছিলেন।
১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী এবং সংগ্রামী নেত্রী আয়েশা খানম বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ছিলেন। এছাড়া রোকেয়া হলের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ও সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ফলে মুক্তিযুদ্ধেও শুরুতে ঢাকায় ছাত্র-ছাত্রীদের সংগঠিত করার দায়িত্ব ছিল আয়েশা খানম এবং তার সহকর্মী ছাত্র নেতাদের ওপর। ছাত্র নেতা হিসেবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে স্বাধিকার আন্দোলনের পক্ষে জনমত গড়ে তোলা ও সচেতনতার কাজেও স্বক্রিয়ভাবে অংশ নিয়েছেন আয়েশা খানম।
তাঁর মৃত্যুতে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু এমপি, সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি হাবিবা রহমান খান শেফালী এমপি, শিক্ষাবিদ মার্কসবাদী অধ্যাপক যতীন সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মতিয়র রহমান খান, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত কুমার রায়, পৌর মেয়র মো. নজরুল ইসলাম খান, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ের সাবেক উপমন্ত্রী সাবেক এমপি আরিফ খান জয়, বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি জেলা কমিটির সভাপতি কমরেড স্বপন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক কমরেড নলীনি কান্ত সরকার, জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি রেহেনা সিদ্দিকী, সাধারণ সম্পাদক তাহেজা বেগম এ্যানি, জেলা যুব ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক তপথী শর্মা, ছাত্র ইউনিয়ন জেলা কমিটির সভাপতি পার্থ প্রতীম সরকার, সম্পাদক তানভীর শোক প্রকাশ করেন।

 

সিএনএ নিউজ/জামান