রৌমারীতে কৃষকের মাঝে রবিশস্য বীজ বিতরণ

আপডেটঃ ৭:০০ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২৩, ২০২০

সাইফুল ইসলাম ,রৌমারী(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধি: রৌমারীতে কৃষকের মাঝে রবিশস্য বীজ বিতরণ শুরু হয়েছে। রৌমারীতে ৫ দফা বন্যায় রোপা আমন ধান নষ্ট হয়ে যাওয়ায় কৃষক হতাশায় পড়েছে। রোপা আমন ধান নষ্ট হওয়ায় কৃষকের কৃষি সহায়তা হিসেবে রৌমারীতে ১০ হাজার কৃষকের মাঝে বিনা মূল্যে সরিষা, গম, খেসারীকলাই, মুসুর,ধানবীজ, সার বাদামসহ বিভিন্ন প্রকার রবিশস্য কৃষকের মাঝে বিতরণ করছে।
এসব শস্যবীজ গত ১৭ নভেম্বর ২০২০ ইং থেকে বিতরণের কাজ শুরু হলেও সপ্তাহ ব্যাপি বিতরণ চলবে বলে মনে করা হচ্ছে। বীজ নিতে আসা ইচাকুড়ির মোকছেদুল, চেংটাপাড়ার সহিবর, খন্জন মারার কাসেম মন্ডলসহ অনেক বীজ গ্রহিতা বলেন, সরকার কৃষকের কৃষি সহায়তা হিসেবে বিনা মূল্যে যে বীজ দিয়েছে, তাহা কোন কাজে আসছেনা। কারণ আমাদের এঅ লে প্রায় ২ সপ্তাহ আগে সরিষা, বাদাম, খেসারী বপন করা হয়েছে। শুধু গম, মুসুর, সুর্যমুখী ও সার কাজে লাগানো যাবে। নিদিষ্ট সময়ে কৃষকের হাতে বীজ না পৌছায় সরকারের দেয়া বীজ অনেকটা কাজে আসবেনা। তাই এ অ লের কৃষকের আকুর্তি কার্তিক মাসের আগেই কৃষকের হাতে বীজ পৌছে দিলে কৃষক তথা কৃষির উপকার হবে।
রৌমারীতে প্রতি বছরই কৃষি ভতুকির বীজ বিলম্বে আসায় উক্ত বীজ খাবার ডাল, বাদাম ভাজা, গমের আটা, ও সরিষা কবুতরের খাদ্যে পরিণত হয। এবিষয়ে রৌমারী সদর ইউনিয়ন (বিএস) উপসহকারি কৃষি অফিসার আবুল হাশেম বলেন, রৌমারী সদর ইউনিয়নে ১৬৮০ জন কৃষকের মাঝে এসব রবিশস্য বিতরণ করা হচ্ছে। তবে বীজ বিলম্বে আসলেও এসব বীজ বপনের এখনো সময় আছে। পানি দেরীতে সরে যাওয়ায় মাটিতে পর্যাপ্ত রস রয়েছ্ েসেহেতু নমল হলেও কোন সমস্যা নেই। এব্যাপারে রৌমারী উপজেলা কৃষিকর্মকর্তা শাহরিয়ার হেসেন বলেন, বন্যা শেষ হওয়ার সাথে সাথে রৌমারীর কৃষকের ক্ষতির পরিমান ও বীজের চাহিদা কুড়িগ্রাম জেলা কৃষিঅধিদপ্তর বরাবর প্রেরণ করা হয়। কুড়িগ্রাম বিএডিসি প্রতিবছর বিলম্বে বীজ সরবরাহ করার কারণে নিদিষ্ট সময়ে রৌমারীতে বীজ সরবরাহ সম্ভব হয়না। তবে দেরীতে হলেও কৃষককে বীজ বপনে পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে।

সিএনএ নিউজ/নাহা