বাউফলে স্বেছাসেবক লীগ নেতার সাংবাদিক সম্মেলন

আপডেটঃ ৬:৫৮ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ১৮, ২০২০

বাউফল(পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ মামলা এবং পুলিশের বিরুদ্ধে অসত্য, বানোয়াট ও মনগড়া তথ্য দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে সুনাম ক্ষুন্ন করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বাউফল উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়ন স্বেছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোঃ জসিম উদ্দিন। রোববার (১৮ অক্টাবর) সকাল ১০টায় বাউফলের বাংলাবাজার এলাকায় পৌর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের কার্যালয়ে একই ইউনিয়নের ছোট ডালিমা গ্রামের মাহাবুব মোল্লা নামের এক ব্যাক্তির বিরুদ্ধে ওই সংবাদ সম্মেলন করা হয়। অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য মোঃ শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মোঃ জসীম উদ্দিন আকন। সংবাদ সম্মেলনে জসিম উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, প্রকৃত ঘটনা আড়াল করে মাহাবুব মোল্লা আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা-বানোয়াট তথ্য দিয়ে গত ১৪ অক্টোবর সাংবাদিক সম্মেলন করে আমাকে সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে হেয় করা হয়েছে। ওই সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের বিরুদ্ধেও কুৎসা রটিয়ে তাদেরকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলানো হয়েছে। এবিষয়ে প্রতিপক্ষ মাহাবুব মোল্লা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের স্মারক নং স্বঃমঃদঃ ১০/২০২০/২০ তাং ১৩/১০/২০২০ প্রকাশিত প্রেস রিলিজে বর্ণিত অপরাধ সংগঠিত করেছেন বলেও সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়। জসিম উদ্দিন জানান, চলতি বছরর ২৫ জানুয়ারি গ্রামের বাড়ি বাউফলের নাজিরপুরে মাহবুব তার ব্যক্তিগত দ্বন্দের কারণে দুঃখজনক হামলার শিকার হন। হামলার ঘটনায় আমাকে প্রধান আসামি করে বাউফল থানায় মামলা দায়ের করেন। ওই সময় আমি ঢাকায় ছিলাম। ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততা না পেয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মামলা থেকে আমাকে অব্যহতি দেন। মাহাবুব এক সময় আমার ব্যবসায়িক পার্টনার ছিলেন। ব্যাবসায়িক কাজে বিভিন্ন সময় মাহাবুবের মাধ্যমে চেক আদান প্রদান করা হতো। এই সুযাগে সে আমার ব্যাংক হিসাবের চেকের একটি পাতা চুরি করেন। চেকের পাতা চুরি হওয়ার ঘটনায় ঢাকার যাত্রাবাড়ি থানায় সাধারন ডায়রীও করা হয়েছে। ২০১৯ সালের ২২ ডিসেম্বর আমাদের উভয়ের সম্মতিতে ব্যবসা আলাদা করা হয়। ৪ মাস পর চুরি হওয়া ওই চেক দিয়ে আমার কাছ ৫১ লাখ টাকা পাবেন বলে দাবি করেন। মিথ্যা মামলায় ফাঁসাতে ব্যর্থ হয়ে মাহবুব সাংবাদিক সম্মেলন করে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করেছেন। এবিষয় জানতে চাওয়া হলে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমাদের কাছে বাদি এবং বিবাদি উভয়ই ন্যায় বিচার প্রার্থী। এই ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত, মোবাইল ট্রাকিং ও স্বাক্ষ্য প্রমাণ এমনকি বাদিকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, আসামি ঘটনার দিন বাউফল ছিলেন না। তাই ন্যায় বিচারের স্বার্থে তাকে মামলা থেকে অব্যহতি দিয়ে চার্জশীট দেয়া হয়েছে। সাংবাদিক সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নাজিরপুর ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি নাসির উদ্দিন, পরিবারের সদস্য ইউনুস আকন, শাহ আলমসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।