বলিউড সুপারস্টার সালমানকে বিয়ে করতে পাকিস্তান ছেড়ে ভারতে আসেন এ নায়িকা

আপডেটঃ ৩:১৫ অপরাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২২

বিনোদন ডেস্ক :  এখন পর্যন্ত বিয়ে না করলেও বলিউড সুপারস্টার সালমান খানের প্রেমিকার সংখ্যা কম নয়। মিস ওয়ার্ল্ড ঐশ্বরিয়া রায় তাদের মধ্যে অন্যতম।
সালমানের সঙ্গে ঐশ্বরিয়ার প্রেম ছিল গভীর ও প্রকাশ্য। এর পরও একটি বিষয়ে ঐশ্বরিয়াকে হার মানতে হবে সালমানের আরেক সাবেক ‘প্রেমিকা’ সোমি আলির কাছে।
সালমানকে বিয়ে করতে নাকি পাকিস্তান ছেড়ে ভারতে পাড়ি জমান সোমি।  পাকিস্তানের করাচিতে জন্ম সোমি আলির। তবে সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় থাকতেন। সেখান থেকেই স্বদেশে না থেকে সোজা ভারতে চলে আসেন এ অভিনেত্রী।
বলিউড লাইফের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সালমানের ‘মেয়নে পেয়ার কিয়া’ সিনেমা দেখার পর তার প্রেমে পড়ে যান সোমা আলি। ১৯৯১ সালে পাকিস্তানের এই সুন্দরীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ান সালমান। টানা ৮ বছর প্রেম করেন তারা। প্রেমের টানে পাকিস্তান থেকে ভারতে চলে আসেন এ নায়িকা। তখন বয়স ছিল মাত্র ১৬ বছর।
এ বিষয়ে এক সাক্ষাৎকারে সোমি বলেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই হিন্দি ফিল্মের পোকা ছিলাম। সালমানের ‘মেয়নে পেয়ার কিয়া’ মুক্তির সময় আমি স্কুলে পড়তাম। সেটি দেখেই তার প্রেমে পড়ি। এক রাতে আমি তাকে স্বপ্নেও দেখলাম।  আমার বয়স তখন ১৬।  সেই সময়ের বয়সে যেমন অনুভূতি কাজ করে। আমি ভাবলাম, স্বপ্নে দেখা মানে সালমানকে বিয়ে করা আমার প্রতি সৃষ্টিকর্তার আদেশ। তখনই ঠিক করি, বিয়ে করলে সালমানকেই করব। একদিন ছোট্ট একটা স্যুটকেস হাতে নিয়েই মাকে বললাম— আমি ভারত চলে যাচ্ছি সালমানকে বিয়ে করতে। এর পর মুম্বাই চলে আসি। এখন মনে হয়, সালমানকে বিয়ে করতে বাড়িঘর ছেড়ে ভারতে চলে যাওয়া কতটা বোকামিই না ছিল।’
ভারতে এসে বলিউডে নিজের অবস্থান তৈরি করেন সোমি।  বছর পাঁচেক কাজও করেন। এরই মধ্যে সালমানের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে তুলেন।
নিজের ইচ্ছার কথা নাকি সালমানকে জানিয়েছিলেনও তিনি। একদা নেপাল ট্যুরে পাশাপাশি আসনে সালমানকে পেয়ে সোমি বলেছিলেন, তোমাকে বিয়ে করতেই এত দূর থেকে ভারতে এসেছি।  তখন সালমানের মন্তব্য ছিল, আমার গার্লফ্রেন্ড আছে।  তখনও হার মানিনি আমি। সালমানের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলি। সালমানই একদিন আমাকে বলেন, আমি তোমায় ভালোবাসি।
সালমানের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ভাঙার পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে যান সোমি। সেখানে নতুন করে উচ্চশিক্ষা শুরু করেন। এর পর লেখিকা, সমাজকর্মী হিসাবে নিজের পরিচয় গড়ে তুলেছেন সাবেক অভিনেত্রী। নব্বইয়ের দশকে কয়েকটি সিনেমায় দেখা গেছে এ নায়িকাকে। রূপালি জগত ছেড়ে বর্তমানে নারী অধিকার নিয়ে কাজ করছেন সোমা।  ধর্ষণ, পারিবারিক নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে সব সময় সরব থাকেন সালমানের এ পাকিস্তানি প্রেমিকা।