ব্রেকিং নিউজঃ

জাপানি নারীর দুই মেয়েকে উদ্ধার

আপডেটঃ ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ | আগস্ট ২৩, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত শরীফ ইমরানের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর জাপানের আদালত ঘুরে দুই শিশুসন্তানকে ফিরে পেতে ঢাকায় এসে হাইকোর্টে রিট করেছিলেন জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকো। ৩১ আগস্টের মধ্যে দুই শিশুকে আদালতে হাজির করতে শরীফ ইমরানকে নির্দেশনা দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।
তবে এর পূর্বে রোববার (২২ আগস্ট) দুই মেয়েকে উদ্ধার করেছে বলে  সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জিসানুল হক নিশ্চিত করেন। কখন কোথা থেকে তাদের উদ্ধার করা হয় সে ব্যাপারে তিনি কিছু বলেননি।
এর আগে বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) সন্তানদের ফিরে পেতে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকো। রিটে দুই শিশুসন্তানকে মা এরিকোর কাছে পাওয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়। হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এরিকোর পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির এ রিট করেছিলেন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।
রিটে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের ভার্চুয়াল বেঞ্চ এরিকোর দুই সন্তানসহ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক শরীফ ইমরান ও তার বোনকে (ফুফু) সশরীরে আদালতে উপস্থিত হওয়ার নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে এক মাসের জন্য শরীফ ইমরান ও দুই শিশুর বাংলাদেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। আদালত রাজধানীর গুলশান ও আদাবর থানার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বলেন এবং ৩১ আগস্ট তাদের আদালতে উপস্থিত নিশ্চিত করার জন্য নির্দেশ দেন।
জানা গেছে, ২০০৮ সালের ১১ জুলাই জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকো (৪৬) ও বাংলাদেশি আমেরিকান শরীফ ইমরান (৫৮) জাপানি রীতি অনুযায়ী বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের পর তারা টোকিওতে বসবাস শুরু করেন। ১২ বছরের সংসারে তাদের তিনটি কন্যাসন্তান জন্মগ্রহণ করে। তারা হলো- জেসমিন মালিকা (১১), লাইলা লিনা (১০) ও সানিয়া হেনা (৭)। এরিকো পেশায় একজন চিকিৎসক। মালিকা, লিনা ও হেনা টোকিওর চফো সিটিতে অবস্থিত আমেরিকান স্কুল ইন জাপানের (এএসআইজে) শিক্ষার্থী ছিল।
চলতি বছরের ১৮ জানুয়ারি শরীফ ইমরান এরিকোর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের (ডিভোর্স) আবেদন করেন। একই মাসের ২১ জানুয়ারি ইমরান এএসআইজে স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে তার মেয়ে জেসমিন মালিকাকে নিয়ে যাওয়ার আবেদন করেন। কিন্তু স্কুল কর্তৃপক্ষ এরিকোর সম্মতি না থাকায় তার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে। পরে ইমরান তার মেয়ে জেসমিন ও লিনাকে স্কুলবাসে বাড়ি ফেরার পথে বাসস্টপেজ থেকে অন্য একটি ভাড়া বাসায় নিয়ে যান।
পরে ওই মাসের ২৫ জানুয়ারি শরীফ ইমরান তার আইনজীবীর মাধ্যমে এরিকোর কাছ থেকে তার বাচ্চাদের পাসপোর্ট হস্তান্তরের আবেদন করেন। কিন্তু এরিকো তা প্রত্যাখ্যান করেন। গত ২৮ জানুয়ারি এরিকো টোকিওর পারিবারিক আদালতে তার বাচ্চাদের জিম্মাদারি চেয়ে অন্তর্বর্তীকালীন আদেশের আর্জি জানিয়ে মামলা করেন। আদালত ৭, ১১ ও ১৪ ফেব্রুয়ারি শিশুদের সঙ্গে তাকে পারিবারিকভাবে সাক্ষাতের আদেশ দেন। ইমরান আদালতের আদেশ ভঙ্গ করে মাত্র একবার মায়ের সাথে তার দুই মেয়ের সাক্ষাতের সুযোগ দেন।
গত ৯ ফেব্রুয়ারি মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে ইমরান তার মেয়েদের জন্য নতুন পাসপোর্টের আবেদন করেন এবং গত ১৭ ফেব্রুয়ারি নতুন পাসপোর্ট গ্রহণ করেন। পরে গত ২১ ফেব্রুয়ারি ইমরান তার দুই মেয়ে জেসমিন ও লাইলাকে নিয়ে দুবাই হয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন।