টঙ্গীতে জোরপূর্বক জমি দখলের চেষ্টা মিথ্যা মামলার পায়তারা

আপডেটঃ ১১:৪৬ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ১৬, ২০২০

সি এন এ প্রতিবেদক: গাজীপুরের টঙ্গীর পশ্চিম থানাধীন তিলারঘাতি এলাকার বাসিন্দা মো: আয়াত আলী অভিযোগ করে বলেন, বিগত ১৭ সেপ্টেম্বর সাতাইশ কাকিলা তিলারঘাতি মৌজায় ডা: তাহমিনা পারভীন ও মৃত ডা: শহীদ আহমেদ শরীফ এর কাছ থেকে সিএস-৭, এসএ-৯ খতিয়ানভুক্ত ১৩৩৯নং জোতভুক্ত, এসএ-২৩১ দাগ, আর এস-২৭৭ দাগে ১৪.৬০ শতাংশ জমি বায়না রেজিষ্ট্রি মূলে জমিতে ভোগ দখলের জন্য স্থাপনা নির্মাণ কাজ অব্যাহত রেখেছি। ইতিপূর্বে জমির ক্রয়কৃত মালিক ডা: তাহমিনা পারভীন ও মৃত ডা: শহীদ আহমেদ শরীফ বিগত ৮ জানুয়ারী-১৯৯২ইং তারিখে সাবরেজিষ্ট্রি মুলে মালিকানা হইয়া জমিতে বাউন্ডারী ওয়াল নির্মাণ করিয়া দীর্ঘ প্রায় ৩০ বছর যাবত সুখ শান্তিতে ভোগদখল করিয়া আসিতেছে। উক্ত ভূমিতে ইতিপূর্বে কাহারো কোন ওজর আপত্তি ছিল না। আমরা রেজিষ্ট্রি বায়না করিয়া জমিতে স্থাপনা নির্মাণ কাজ শুরু করিলে ৫ অক্টোবর ২০২০ইং তারিখে টঙ্গী পশ্চিম থানার এসআই নাজমুল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হইয়া নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়। পরবর্তীতে জমির মালিকানার কাগজপত্র দেখাইলে বাধা নিষেধ প্রত্যাহার করিয়া চলে আসে। পুন:রায় ১৪ অক্টোবর ২০২০ইং টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি তদন্ত ও এসআই সুমন ঘটনাস্থলে এসে নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার জন্য বলে। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকিয়া কাজ বন্ধ রাখি। কিন্তু ১৫ অক্টোবর রাত আনুমানিক ১১ঘটিকার সময় মোফাজ্জেল হোসেনের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়া জমি দখলের চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে আমাদের ও আশপাশের লোকজন জড়ো হলে তারা দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে চলে যায়। এই প্রসঙ্গে ডা: তাহমিনা পারভীন জানান, জনৈক আলতাফ মন্ডলের পৈত্রিক সম্পত্তি বিগত ১৩ নভেম্বর ১৯৯১ ইং তারিখে ১৬শতাংশ সম্পত্তি রেজিষ্ট্রি বায়না করি। পরবর্তীতে ৮ জানুয়ারী ১৯৯২ইং তারিখে সাব কবলা দলিল মুলে আমি ও আমার স্বামী ডা: শরীফ ১৪.৬০ শতাংশ জমির মালিকানা হই। আমার টাকার বিশেষ প্রয়োজনে বিক্রির প্রস্তাব করিলে বর্তমান বাজার ন্যায্য মূল্যে মো: আয়াত আলী, মো: আবুল হোসেন, মো: হাসেম আলী, মো: ইউনুস আলীগংরা ন্যায্য মূল্য পরিশোধ করিয়া বিগত ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ইং তারিখে রেজিষ্ট্রি বায়না করা হয়। সেই মর্মে বায়নাকৃত মালিকদের জায়গায় বুঝাইয়া দেই। এ ঘটনায় টঙ্গী পশ্চিম থানার এসআই সুমনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মোফাজ্জেল হোসেন নামে এক ব্যক্তি তাহার জমির রাস্তা আটকাইয়া স্থাপনা নির্মাণ করছে এই মর্মে একটি অভিযোগ দায়ের করলে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সরেজমিনে পরিদর্শন করি। এই বিষয়ে আমাদের হস্তক্ষেপ করার কোন আইনগত ভিত্তি নেই। আমরা তাদেরকে আদালতে দেওয়ানী মামলা বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছি। এ বিষয়ে মোফাজ্জেল হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আলতাফ মন্ডলের ওয়ারিশগণদের কাছ থেকে বিগত ৭/৮ বছর আগে ৩.৩০ শতাংশ জমি ক্রয় করি। যাহা স্থানীয় লোকজন উপস্থিত জমি মাপ দিয়ে টিনের বাউন্ডারী নিমাণ করে রাখি। পরবর্তীতে ডা: তাহমিনা পারভীন এর নেতৃত্বে আমাকে দখল থেকে উচ্ছেদ করে দেয় এবং আমার বিরুদ্ধে গাজীপুর জেলা ও দায়রা জজকোর্টে ফৌজদারী মামলা দায়ের করেন যাহা চলমান রহিয়াছে। আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ ১৫ তারিখ রাতে জোরপূর্বক জমি দখলের বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি আইনগত সহযোগিতার জন্য টঙ্গী পশ্চিম থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে মো: আয়াত আলী ও তার পরিবারের লোকজন বলেন, আমরা অত্যান্ত ভয়ভীতি ও সঙ্কায় আছি। মোফাজ্জেল হোসেনের দ্বারা আমাদের যে কোন মুহুর্তে বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছি। আমরা চরমন নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছি। যে কোন সময় আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলায় হয়রানির চেষ্টা করবে বলে এ ধরনের হুমকি ধমকি প্রদান করিয়া আসিতেছে। উক্ত ঘটনায় ন্যায় বিচারের স্বার্থে প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তাক্ষেপ কামনা করছি।