এবারো পার পেয়ে গেলেন অভিযুক্ত বিতর্কিত ডা: জীবন কৃষ্ণ

আপডেটঃ ১০:৫৫ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ১৬, ২০২০

সি এন এ  নিউজ,নেত্রকোনা : ভুল চিকিৎসা ও অপারেশনকালে গত দুই বছরে কসাই নামে পরিচিত বিতর্কিত ডা: জীবন কৃষ্ণের হাতে ১১ জন প্রসূতির মৃত্যুর পর সাময়িকভাবে আত্মগোপনে থাকার পর এবারো পার পেয়ে গেলেন তিনি। নেত্রকোনা সিভিল সার্জন কর্তৃক সূনেত্র ক্লিনিককে মাত্র ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে ওই ডাক্তারকে সেভ করায় এলাকায় সাধারনের মাঝে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে।
গত সোমবার নেত্রকোনা শহরের সূনেত্র নামের একটি ক্লিনিকে সদর উপজেলার লক্ষীগঞ্জ ইউনিয়নের আইরিন আক্তার ঝর্ণা নামের এক প্রসূতি মায়ের সিজার করতে গিয়ে মূত্রথলি কেটে ফেলেন সিএফসি ডাক্তার জীবন কৃষ্ণ। পরবর্তীতে এ অবস্থায় ফেলে সহযোগীদের হাতে ছেড়ে দিয়ে কলিংয়ে অন্য আরেকটি সিজার করতে চলে যান তিনি। এরপর প্রসূতির অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরনের খবর পেয়ে আবারো এসে ওই নারীর জরায়ু কেটে ফেলেন। ভুল অপরেশন ও কাটাকাটির পর অতিরিক্ত রক্তক্ষরনের পর ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে প্রেরনের পর মারা যান ওই রোগী। গত মঙ্গলবার লাশ লক্ষীগঞ্জ নিজ বাড়িতে দাফন করে স্বজনরা। এ নিয়ে ভুল চিকিৎসা ও অপারেশনে তার হাতে ১১ সিজারিয়ান রোগী অকালে মৃত্যুবরন করেন। এদিকে এর আগে মাতৃসদনের ঠিক বিপরীতে আলনুর ক্লিনিকেও একই ঘটনা ঘটান এই ডাক্তার জীবন কৃষ্ণ। কিন্তু লিখিত অভিযোগ করার পরেও ওই ডাক্তার একটি প্রভাবশালী মহলের মাধ্যৃমে প্রভাব খাটিয়ে বার বার তিনি পার পেয়ে যান। কিন্তু গত বুধবার দুপুরে শহরের ছাট বাজারস্থ সুনেত্র প্রাইভেট হাসপালের সামনে স্বজন ও এলাকাবাসীর মধ্যে প্রচন্ড ক্ষোভের সৃষ্টি হলে বাধ্য হয়ে সিভিল সার্জন ডা: তাজুল ইসলাম খান পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট এক তদন্ত টিম গঠন করে তিনদিনের মধ্যে রিপোর্ট প্রদানের নির্দেশ প্রদান করেন। সিভিল সার্জন তাজুল ইসলাম দায়িত্ব গ্রহনের পর স্বাস্থ্য বিভাগের বেহাল অবস্থার সুষ্টি হয় বলে ভুক্তভোগী অনেকে অভিযোগ করেন।