শেষ পর্যন্ত টি-২০ বিশ্বকাপ স্থগিত

আপডেটঃ ১২:০০ অপরাহ্ণ | জুলাই ২১, ২০২০

ক্রীড়া ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারীর বিরূপ প্রভাব পড়েছে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনে গত মার্চ মাস থেকেই। বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া ইভেন্ট টোকিও অলিম্পিক ২০২০ স্থগিত হওয়ার পর পর একটার পর একটা বড় ক্রীড়া ইভেন্ট স্থগিত হওয়া শুরু করেছে।

সে কারণেই এ বছরের ১৮ অক্টোবর থেকে ১৫ নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়ায় পূর্ব নির্ধারিত টি-২০ বিশ্বকাপ আয়োজন ছিল অনিশ্চিত। আইসিসি গত এপ্রিল মাস থেকে কোন সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারেনি। জুলাই মাসে অনুষ্ঠেয় সভা পর্যন্ত ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে ১৬টি দেশের অংশগ্রহনে আইসিসি’র এই মেগা আসর।

এ বছরের সেপ্টেম্বরে পূর্ব নির্ধারিত এশিয়া কাপ টি-২০ স্থগিত হলে অপেক্ষা ছিল শুধু টি-২০ বিশ্বকাপের আনুষ্ঠানিক স্থগিত ঘোষনা।টি-২০ বিশ্বকাপের আনুষ্ঠানিক স্থগিত ঘোষনার পর পর আইপিএল-এর পরবর্তী পদক্ষেপ নিবে বলে বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া (বিসিসিআই) থেকে ছিল চাপ। বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী বোর্ডের সেই চাপের কাছে নতি স্বীকার করেছে আইসিসি।

সোমবারের সভায় আইসিসি টি-২০ বিশ্বকাপের ভাগ্য নির্ধারিত হওয়ার কথা ছিল।শেষ পর্যন্ত আইসিসি’র সভায় টি-২০ বিশ্বকাপ স্থগিত হয়েছে। পিছিয়ে দেয়া হয়েছে টি-২০ বিশ্বকাপ এক বছর। আগামী বছরের (২০২১) অক্টোবর-নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে টি-২০ বিশ্বকাপ। ১৪ নভেম্বর হবে ফাইনাল। ২০২২ সালে আইসিসি’র ক্যালেন্ডারে ছিল না কোন মেগা আসর। ২০২০ সালের টি-২০ বিশ্বকাপ পিছিয়ে যাওয়ায় ২০২২ সালের অক্টোবর-নভেম্বরে হবে টি-২০ বিশ্বকাপ। ফাইনাল হবে ১৩ নভেম্বর।

টি-২০ বিশ্বকাপের এই দু’টি আসরের স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া এবং ভারত অদল-বদল করবে, না ২০২২ সালে অনুষ্ঠেয় টি-২০ বিশ্বকাপের স্বাগতিক হবে অস্ট্রেলিয়া,তা চূড়ান্ত হয়নি। তবে আইসিসি’র সভায় চূড়ান্ত হয়েছে ২০২৩ সালে ভারতে অনুষ্ঠেয় আইসিসি বিশ্বকাপ। ৫০ ওভারের এই বিশ্বকাপটিও হবে অক্টোবর-নভেম্বরে। ফাইনাল হবে ২৬ নভেম্বর।

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে করোনা ভাইরাসের সংক্রমন দেখা দেয়ায় অস্ট্রেলিয়া সরকারের পক্ষ থেকে টি-২০ বিশ্বকাপ আয়োজনে সবুজ সংকেত পায়নি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। বৈশ্বিক মহামারীর মধ্যে ১৬টি দলকে অস্ট্রেলিয়ায় এনে তাদেরকে কোয়ারেন্টিনে রেখে,স্বাস্থ্য বিধি মেনে দর্শকহীন টি-২০ বিশ্বকাপ আয়োজন বর্তমান প্রেক্ষাপটে বাস্তব সম্মত নয় বলে ক’দিন আগে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার চেয়ারম্যান গণমাধ্যমকে বলেছিলেন।তাতেই আইসিসি’র পক্ষে সিদ্ধান্ত গ্রহন করা সহজ হয়েছে।

আইসিসি’র সিইও মানু সাহানী বলেছেন-‘আমাদের প্রথম অগ্রাধিকার হ’ল খেলাধুলায় জড়িত প্রত্যেকের স্বাস্থ্য এবং সুরক্ষা রক্ষা করা।তাই আমরা একটি জটিল পরিকল্পনার মধ্য দিয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি। টি-২০ বিশ্বকাপ স্থগিত করার সিদ্ধান্তটি আমাদের কাছে উপলভ্য সমস্ত বিকল্পের যত্ন সহকারে বিবেচনা করার পরে নেওয়া হয়েছিল এবং বিশ্বজুড়ে ভক্তদের জন্য দুটি নিরাপদ ও সফল টি-২০ বিশ্বকাপের সুযোগ দিয়েছে।’