প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে আ.লীগের শ্রদ্ধা

আপডেটঃ ৩:১৬ অপরাহ্ণ | জুন ২৩, ২০২০

সি এন এ প্রতিবেদক:দলের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছে আওয়ামী লীগ।

মঙ্গলবার (২৩ জুন) সকাল নয়টায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ দলের শীর্ষ নেতারা শ্রদ্ধা জানান।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, আব্দুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন, মির্জা আজম, শাখাওয়াত হোসেন শফিক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আব্দুস সবুর, উপ দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা জানানো শেষে ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ, তাঁতী লীগ, আওয়ামী মৎসজীবী লীগ, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়।

এছাড়া ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ব্যরিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, অনেক আন্দোলন সংগ্রাম, সম্ভাবনা অর্জন সব কিছু মিলিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা এক অভিন্ন সত্তা। সুতরাং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগই বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছিল। আজকে আমরা যেই আকাঙ্ক্ষা এবং ইচ্ছা নিয়ে ২৩ জুনকে পালন করার প্রস্তুতি নিয়েছিলাম করোনা মহামারির কারণে সেটি আমাদের সম্ভব হয়নি। এটাই বাস্তবতা এবং সেই বাস্তবতাকে মেনে নিয়েই সীমিত পরিসরে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করছি।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, আজ আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। আওয়ামী লীগ গণমানুষের মধ্য থেকে গড়ে ওঠা একটি দল। বাংলাদেশের সমস্ত অর্জনের সঙ্গে আওয়ামী লীগের নাম জড়িয়ে আছে। আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় অর্জন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতা সংগ্রাম। স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ রাষ্ট্র রচনা করা বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করা।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ শুধুমাত্র বাংলাদেশ নামে রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেনি, ১৯৫৬ সালে আওয়ামী লীগ যখন পাকিস্তানের কেন্দ্রে সরকার গঠন করে তখন এই শহীদ মিনার তৈরি এবং সরকারিভাবে পালন করতে শুরু করে। পাকিস্তানের প্রথম সংবিধান সেটিও আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে রচিত হয়েছিল।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু দেশ পরিচালনার মাত্র সাড়ে তিন বছরের মাথায় তাকে হত্যা করা হয়। বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে কয়েক দশক আগেই আমরা দক্ষিণ কেরিয়া, মালয়শিয়ার মতো রাষ্ট্রে রূপান্তর হতে পারতাম। আজকে জাতির জনকের স্বপ্ন পূরণের লক্ষে বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনা অক্লান্ত পরিশ্রম করে অদম্য গতিতে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আজকে আওয়ামী লীগ একটি স্ফুলিঙ্গের নাম।