অনলাইনে পোশাক বিক্রির অনুমতি

আপডেটঃ ১:৪২ অপরাহ্ণ | মে ০৭, ২০২০

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক : সাধারণ ছুটি ও জনপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকা অবস্থাতে পোশাক, বই, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী ও রেস্তোরাঁর তৈরি খাবার অনলাইনে বিক্রি ও হোম ডেলিভারির অনুমতি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

অনলাইন পোশাক বিক্রেতাদের বিপুল পরিমাণ মজুদপণ্যের বিষয়ে অবগত করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেয় ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব)। তারই প্রেক্ষিত্রে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত নতুন নির্দেশনায় ঈদকে সামনে রেখে পোশাকসহ উপরোক্ত পণ্যসমূহের অনলাইন বাণিজ্য অনুমোদন দেয়া হয়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুসারে রেস্তোরাঁগুলোকে শর্তসাপেক্ষে শুধুমাত্র খাবারের হোম ডেলিভারি দেয়ার জন্য কিচেন খোলার অনুমতি দেয়। সকাল ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত অনলাইনে অর্ডারকৃত এসকল পণ্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিক্রয় ও ডেলিভারি করতে বলা হয়।

ই-ক্যাব জানায়, যেসব অনলাইন পোশাক বিক্রেতা পহেলা বৈশাখ ও ঈদ উপলক্ষ্যে ব্যাপক পরিমাণ মজুদ পণ্য নিয়ে সমস্যায় পড়েছেন তাদের কথা বিবেচনা করে জরুরি পণ্যের পাশাপাশি ঈদকে সামনে রেখে পোশাক বিক্রয় এবং রমজানের সাহরি ও ইফতারের জন্য রেস্টুরেন্ট এর খাবার, সেই সাথে বই ও ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী অনলাইনে বিক্রয় ও ডেলিভারির অনুমতির জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন জানায় ই-ক্যাব।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারিকৃত নির্দেশনায় রেস্টুরেন্ট খাবার বিক্রি সম্পর্কে সম্পর্কে বলা হয়, রেস্টুরেন্টে বসে খাওয়া যাবে না, শুধুমাত্র হোম ডেলিভারির জন্য এই অনুমতি দেয়া হলো। এছাড়া ফুড ডেলিভারি কোম্পানির ডেলিভারিম্যানদের রেস্তোরাঁর ভেতরে প্রবেশ করতে নিষেধ করা হয়। এবং যেসব ফুড ডেলিভারি কোম্পানি মন্ত্রণালয়ের বিশেষ বিধিমালা মেনে চলতে অঙ্গীকারপত্র জমা দিয়েছে শুধুমাত্র তাদের ক্ষেত্রেই এই অনুমতি প্রযোজ্য বলে জানা যায়।

ই-ক্যাবের সদস্য প্রতিষ্ঠানসমূহকে ই-ক্যাব থেকে স্টিকার ও প্রত্যয়ন পত্র সংগ্রহ করে অনুমোদিত পণ্যের বাণিজ্যিক কার্যক্রম চালানোর অনুরোধ করা হয়েছে। যারা প্রচলিত ব্যবসায়ের মাধ্যমে এসব পণ্য বিক্রি করেন তাদেরকেও অনলাইনে বিক্রির জন্য ই-ক্যাবের সাথে যোগাযোগের অনুরোধ জানান ই-ক্যাবের সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহেদ তমাল। বিস্তারিত জানতে ই-ক্যাবের সাপোর্ট সেন্টারে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। সাপোর্ট সেন্টার নম্বর- 09678100700 (সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা)।