ঋতুরাজ বসন্তের আগমন

আপডেটঃ ১১:২৯ অপরাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০২০

মোস্তাফিজুর রহমান তারা (কুড়িগ্রাম)থেকে: ঋতুরাজ বসন্তের আগমনে আজ জাগ্রত বসন্ত দ্বারে,তব অবগুন্ঠিত কুন্ঠিত জীবনে , কোরোনা বিড়ন্বিত তারে। এভাবেই ঋতুরাজ বসন্তের বন্দনা করেছেন কবি গুরু রবিন্দ্রনাথ ঠাঁকুর। অপরদিকে কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় ঋতুরাজ বসন্তকে এভাবে উপলব্দি করেছেন- ফুলফুটুক আর নাই ফুটুক আজ বসন্ত।
বেরসিক শীতের তিব্রতার হিমেল হাওয়ায় গাছপালার জির্ণসির্ন রুপ যেন পরিবেশের জন্য বেমানান। তাই প্রকৃতি তার রহস্যে ঘেরা পরিবর্তনের রুপে বদলে দেয় তার রহস্যের ভান্ডরে। আধমরা শুকনো গাছপালায় নুতন কপি পাতার সাথে সাথে রংবেরংয়ের ফুলফোটে গাছে গাছে।
প্রকৃতির ইশারায় য়েন উজ্জিবিত সকল বৃক্ষরতা। ঋতুরাজ বসন্তের আগমনের সাথে সাথে বদলে যায় পরিবেশ। বাড়তে থাকে বাতাসের তিব্রতা। ফুলের মৌমৌ গন্ধ বাতাসের সাহায্যে ছড়িয়ে পড়ে ,মৌমাছিরা আকুল মনে ফুলেফুলে করে আলিঙ্গন। বসন্ত মানেই নুতন সাজে প্রকৃতির সৃষ্টির প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের শোভা বর্ধন। প্রকৃতির রহস্যে ঘেরা প্রাকৃতিক সৌন্দর্য।
কবি গুরু রবিন্দ্রনাথ লিখেছেন,আহা আজি এ বসন্তে , কত ফুল পোটে, কত বাঁশি বাজে ,কত পাখি গায়। শীতের শেষে প্রকৃতির নিয়মে ঋতুরাজ বসন্তের আগমন ঘটে। ঋতু পরিবর্তনের সাথে সাথে চির সবুজ বসন্তের আগমনে পাতাঝরা গাছ গুলো কচি পাতার সমারোহে ফিরে পায় নুতন জীবন। ঋতুরাজ বসন্ত আম্রমুকুলের মৌমৌ গন্ধে দক্ষিনা সমীরনে মুহীত করেছে মনওপ্রাণ। বাড়ির উঠানে রাস্তার ধারে বাগান বাড়িতে আম্রমুকুলের শোভা যেন ঋতুরাজ বসন্তকে বরণ করে নিচ্ছে।
গাছে-গাছে নুতন কচি পাতার ফাকে বসে পাখিদের প্রেমের কিচিরমিচির শব্দে যেন মুখরিত আকাশ বাতাস। শিমুল, কৃষ্ণচুড়ায় লাল টকটকে ফুলের বাহার যেন কেড়ে নেয় কপত কপতীর মন।