ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করতে এসে ধর্ষণের শিকার দুই বোন

আপডেটঃ ৫:২৩ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ১১, ২০১৯

সি এন এ নিউজ,টঙ্গী(গাজীপুর): গাজীপুরের টঙ্গীতে ফুপাত ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন দুই সহদোর বোন। রাত নয়টার দিকে ফুপাত ভাইয়ের বাসার কাছাকাছি এসে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেন। ্ও সময় ফুপাত ভাইয়ের ফোন বন্ধ পেয়ে থাকায় রাস্তায় অপেক্ষা করতে থাকেন তারা। এরই এক পর্যয়ে অজ্ঞাত পরিচয়ে এক নারীসহ এগিয়ে আসে ৩ থেকে ৪ জন তরুণ। তাদের জোরপূর্বক তুরাগ নদের একটি নৌকায় তোলে নিয়ে যায় একটি নির্জন এলাকায়। সেখানে চলে জোরপূর্বক ধর্ষণ।

পুলিশের কাছে ঘটনার এমন বর্ননাই দিয়েছেন ধর্ষণের শিকার এই দুই বোন। তাদের একজনের বয়স ১৮ ও অপর জনের ১৭ বছর। তাদের বাসা রাজধানীর উত্তর বাড্ডা এলাকায়। বুধবার গাজীপুরের টঙ্গী বাজার এলাকায় তাদের ফুপাত ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করতে আসেন। এসময় এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে তাদের সঙ্গে।

পুলিশকে দেওয়া তথ্যে ওই দুই বোন জানান, ঢাকার উত্তর বাড্ডা থেকে ফুফাতো ভাই জয়নাল মিয়ার সঙ্গে দেখা করতে টঙ্গীতে আসে তারা। রাত নয়টার দিকে টঙ্গী বাজার এলাকায় এসে জয়নাল মিয়ার মুঠোফোনে যোগাযোগ করেন তারা। এসময় তার(জয়নাল) মুঠোফোনটি বন্ধ থাকায় অপেক্ষা করতে থাকেন একটি তুরাগ নদের পাশে একটি জায়গায়। এসময় এক অপরিচিত নারী এসে তাদেরকে একটু সামনে যেতে বলে। ওই নারীর কথামতো তারা সামনে গেলে মো. নাঈম(২২), মো.রাসেল(১৯), মো. শরিফ হোসেনসহ(২২) আরও দুইজন জোরপূর্বক তাদেরকে একটি নৌকায় তুলে । এরপর তুরাগ নদের পাড়ে হাজী মাজার বস্তি এলাকার পিমকি এ্যাপরেলস নামক একটি পোশাক কারখানার পাশে ফাঁকা জায়গায় জোরপূর্বক ধর্ষণ করে তারা। পরে তারা ডাক চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন গিয়ে তাদের উদ্ধার করে।

ঘটনার শিকার বড় বোন জানান, প্রথমে নাঈম তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে রাসেলের সহযোগীতায় শরিফও ধর্ষণ করে তার ছোট বোনকে।

যোগাযোগ করা হলে টঙ্গী পশ্চিম থানার ওসি (তদন্ত) দেলোয়ার হোসেন বলেন, এ ঘটনায় বড় বোন বাদী হয়ে একটি মামলা করেছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য দুজনকেই হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত একজন তাদের পূর্ব পরিচিত বলে জানা গেছে। তা ছাড়া তাদের বর্ননা অনুযায়ী পুরো ঘটনাটি যাচাই বাছাই করে আসামীদের ধরার চেষ্টা চলছে।