জাপানের কিশোরীরা চ্যাম্পিয়ন

আপডেটঃ ১০:০০ পূর্বাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯

ক্রীড়া প্রতিবেদক :উত্তর কোরিয়াকে রেকর্ড গড়তে দিল না জাপানের কিশোরীরা। দিল না চতুর্থ শিরোপা শোকেসে তুলতে। তাদের ২-১ গোলে হারিয়ে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জিতে নিয়েছে জাপান অনূর্ধ্ব-১৬ দল। এটা অবশ্য তাদেরও চতুর্থ শিরোপা। এর আগে ২০০৫, ২০১১ ও ২০১৩ সালে শিরোপা জিতেছিল তারা। ৬ বছর পর আবার অনূর্ধ্ব-১৬ এর শ্রেষ্ঠত্ব ফিরে পেল জাপানের কিশোরীরা।

আজ শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় এএফসি কাপের ফাইনালে থাইল্যান্ডের চনবুরি স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় জাপান ও উত্তর কোরিয়া। উত্তর কোরিয়ার সামনে সুযোগ ছিল টানা তৃতীয় শিরোপা জিতে রেকর্ড গড়ার। সে যাত্রায় ম্যাচের ৯ মিনিটেই এগিয়ে গিয়েছিলও তারা।

এ সময় উত্তর কোরিয়ার কিম চুং মি বল নিয়ে ঢুকছিলেন জাপানের ডি বক্সের মধ্যে। তাকে পেছন থেকে রুখতে গিয়ে ফাউল করে বসেন রিরিকা তান্নো। রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজান। রিরিকাকে হলুদ কার্ড দেখিয়ে সতর্ক করেন। পেনাল্টি থেকে হং সং-ওকে গোল করে এগিয়ে নেন উত্তর কোরিয়াকে। তার নেওয়া শট বুঝতেই পারেননি জাপানের গোলরক্ষক নোদা।

অবশ্য উত্তর কোরিয়া বেশিক্ষণ এগিয়ে থাকার সুযোগ পায়নি। ম্যাচের ১৯ মিনিটেই সমতা ফেরায় জাপান। এ সময় ডি বক্সের সামনে ভুল পাসে বল পেয়ে যান জাপানের সুজু আমানো। তিনি বল নিয়ে ঢুকে পড়েন ডি বক্সে। তার সামনে কেবল কোরিয়ার গোলরক্ষক। তাকে পরাস্ত করে বল জালে জড়িয়ে সমতা ফেরান।

২৩ মিনিটের মাথায় এগিয়ে যায় জাপান। এ সময় কর্নার পায় তারা। কর্নার থেকে নিচু পাসে ডি বক্সের ভেতরে বল পেয়ে যান ইয়ুকো ইনোসে। তিনি শট না নিয়ে বাড়িয়ে দেন ডি বক্সের বাইরে থাকা মানাকা হায়াসিকে। বল পেয়ে ডি বক্সের বাইরে থেকেই জোরালো শট নেন হায়াসি। উত্তর কোরিয়ার গোলরক্ষক কিছু বুঝে ওঠার আগেই ডানকোনা দিয়ে বল জালে জড়ায়।

এরপর উভয় দলই আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ চালায়। দারুণ দারুণ কিছু গোলের সুযোগ তৈরি করে। কিন্তু কাঙ্খিত গোলের দেখা পায়নি কেউ। তাতে ২-১ ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে জাপানের কিশোরীরা। পাশাপাশি এএফসি কাপের চতুর্থ শিরোপা জয়ও নিশ্চিত করে তারা।

অবশ্য ম্যাচে বল দখল ও পাসের দিক দিয়ে জাপানের চেয়ে এগিয়ে ছিল উত্তর কোরিয়া। ৫৪ শতাংশ বলের দখল ছিল কোরিয়ার কিশোরীদের কাছে। অন্যদিকে ৪৬ শতাংশ ছিল জাপানের কাছে। কোরিয়ার কিশোরীরা মাঠে ৯০ মিনিটে পাস দিয়েছে ৩৭০টি। পক্ষান্তরে জাপানের কিশোরীরা দিয়েছে ৩১৮টি। অন টার্গেটে শট নেওয়ার ক্ষেত্রে উভয় দল সমান সমান (৪টি করে)। অফ টার্গেটে উত্তর কোরিয়ার চেয়ে একটি শট বেশি নিয়েছে জাপান (৬টি)।

বলের দখল, টোটাল পাস, অন টার্গেট, অফ টার্গেট সবকিছু ছাপিয়ে দিনশেষে কোরিয়াকে হারিয়ে শিরোপা জিতে নিয়েছে জাপানই।

এদিকে স্থান নির্ধারণী ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে তৃতীয় হয়েছে চীন।

এই টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের মেয়েরা অষ্টম হয়েছে। গ্রুপ পর্বে তারা প্রথম ম্যাচে থাইল্যান্ডের কাছে ১-০ ব্যবধানে হেরে যায়। এরপর জাপানের কাছে হার মানে ৯-০ ব্যবধানে। শেষ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করে মাথা উঁচু করে দেশে ফেরে।