সরকারি নথিতে কাশ্মীরে গ্রেপ্তার ৪ হাজার

আপডেটঃ ৫:৫৮ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :গত মাসে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা বাতিলের পর কাশ্মীরে প্রায় চার হাজার লোককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। খোদ সরকারি নথিপত্রেই এমন তথ্য মিলেছে বলে বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে। সেই সুবাদে ভারতভুক্তির পর কাশ্মীরের ইতিহাসে এটাই সবচেয়ে বড় ধরপাকড়।

গত ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মাধ্যমে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল ঘোষণা করে বিজেপি সরকার। বিক্ষোভ-প্রতিবাদ বন্ধে ভারত সরকার কাশ্মীরের ইন্টারনেট ও মোবাইল ফোন সেবা বন্ধ করে দেয় এবং রাজ্যর অধিকাংশ স্থানে কারফিউ জারি করে।

৬ সেপ্টেম্বর সরকারি এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তিন হাজার ৮০০ এর বেশি লোক গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অবশ্য এদের মধ্যে প্রায় দুই হাজার ৬০০ জনকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্রের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জবাব দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। জম্মু ও কাশ্মীরের পুলিশও জবাব দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

কিসের ভিত্তিতে বিপুল সংখ্যক লোককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা স্পষ্ট নয়। তবে এক ভারতীয় পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, জন নিরাপত্তা আইনের আওতায় কাউকে কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জম্মু ও কাশ্মীরের এই আইন অনুযায়ী গ্রেপ্তারকৃতকে দুই বছর বিনাবিচারে আটক রাখা যাবে।

গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে রাজ্যের প্রাক্তন দুই মুখ্যমন্ত্রী, দুই শতাধিক রাজনীতিবিদ এবং বিচ্ছিন্নতাবাদী রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর শতাধিক নেতা রয়েছেন। এর বাইরে গ্রেপ্তার তিন হাজার হচ্ছে পুলিশের দিকে ‘পাথর নিক্ষেপকারী ও দুর্বৃত্ত।’ রোববার ৮৫ বন্দীকে উত্তর ভারতের আগ্রায় স্থানান্তর করা হয়েছে বলে জানিয়েছে একটি পুলিশ সূত্র।