প্রাইভেট গ্রুপের জন্য ফেসবুকের সতর্কবার্তা

আপডেটঃ ৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ | আগস্ট ১৯, ২০১৯

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক :ব্যবহারকারীদের নানা ধরনের পরিষেবা দেওয়ার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ফেসবুক। যদিও এই প্ল্যাটফর্মটিকে লাখ লাখ মানুষ পছন্দ করেছে কিন্তু বিগত বছরগুলোতে নানা কেলেঙ্কারিতে প্ল্যাটফর্মটি ব্যাপক সমালোচনার মুখেও পড়েছে। গোপনীয়তা লঙ্ঘন এবং ভুয়া তথ্যর ছড়াছড়ি বিগত সময়ে ফেসবুককে ব্যাপক বিতর্কিত করেছে। এই সমালোচনা কাটিয়ে উঠতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ নতুন নতুন নীতিমালা তৈরি করছে এবং সোশ্যাল সাইটটির ব্যবহারকারীদের সকল কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করছে।

‘প্রাইভেট’ গ্রুপগুলোকে ফেসবুক মনে করিয়ে দিচ্ছে যে, তারাও ফেসবুকের নজরদারির মধ্যে রয়েছে। এমনকি যদি গ্রুপটি ‘ক্লোজড’ অথবা ‘প্রাইভেট’ হয়ে থাকে তাহলে তার মানে এই নয় যে, গ্রুপের কার্যক্রম ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে লুকাতে পারবে। ফেসবুক সব ধরনের গ্রুপের প্রতিটি কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করছে।

সম্প্রতি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ গ্রুপগুলোতে (এমনি গ্রুপটি প্রাইভেট গ্রুপ হয়ে থাকলেও) বাজে কনটেন্ট এবং বাজে আচরণ বন্ধ করার জন্য নতুন নীতিমালা এবং নতুন কিছু পদক্ষেপ সম্পর্কিত তথ্য প্রকাশ করেছে।  ফেসবুকে তাদের সকল গ্রুপকে এ কথা স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে যে, গ্রুপগুলোর কার্যক্রম ফেসবুকের নজরদারির বাইরে রয়েছে এমনটা যেন না ভাবে।

সোশ্যাল সাইটটি আরো বেশি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির টুলস ব্যবহার শুরু করেছে, যা নীতিমালা ভঙ্গকারী কনটেন্ট শনাক্ত করতে পারে, ব্যবহারকারীরা রিপোর্ট করার আগেই। গ্রুপ মডারেটরদের জন্য নীতিমালা কঠোর করা হয়েছে, ফলে কোনো একজন নীতিমালা ভঙ্গ করলে পুরো গ্রুপ শাস্তির মুখোমুখি হবে। এছাড়াও ফেসবুক বেশ কিছু নতুন টুলস যুক্ত করেছে, যা ব্যবহারকারীদের ভুয়া সংবাদ ও নিয়মভঙ্গকারী কার্যক্রম বুঝতে এবং পরবর্তীতে যাতে আর না ঘটে তা রোধ করতে সহায়তা করবে।

চলতি বছরের এপ্রিলে ফেসবুক গ্রুপগুলোর জন্য নতুন এবং আরো কঠোর নীতিমালা ঘোষণা করেছিল। আর এবার সোশ্যাল সাইটটি স্পষ্টভাবে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে যে, সকল ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে লুকানো ‘প্রাইভেট’ গ্রুপগুলোর কোনো সদস্য নীতিমালা ভঙ্গ করলে শাস্তি পাবে।

নানা বিতর্ক কাটিয়ে উঠতে এবং ভাবমূর্তি বজায় রাখতে ফেসবুক নানা কৌশলে চেষ্টা করছে। আর এক্ষেত্রে গ্রুপগুলোর বড় ভূমিকা রয়েছে। তাই এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যে, নিয়ম অনুসারে চলতে গ্রুপগুলোকে ফেসবুক সতর্ক বার্তা পাঠাচ্ছে। কারণ গ্রুপগুলোকে ফেসবুকের প্রয়োজন কিন্তু সোশ্যাল সাইটটি চায় গ্রুপগুলো ব্যবহারকারীদের জন্য একটি নিরাপদ ব্যাপার হয়ে উঠুক। বিগত সময়ে ফেসবুকের অনেক গ্রুপ ভুয়া খবর ও গুজব ছড়ানোর উদ্দেশে আত্মপ্রকাশ করেছিল। সুতরাং কঠোর নিয়মের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে সে চেষ্টা করছে।

শেষ কথা

বিগত বছরগুলোতে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মটি প্রচুর বিতর্কের মুখোমুখি হয়েছিল। নতুন নীতি ও পদক্ষেপের মাধ্যমে প্ল্যাটফর্মটিকে ব্যবহারকারীদের কাছে আরো সুরক্ষিত এবং নিরাপদ করার চেষ্টা করছে। এ কারণেই ফেসবুক গ্রুপগুলোর ওপর নজরদারিতে ব্যাপক বিনিয়োগ করছে। কারণ গ্রুপগুলো ফেসবুকের প্রয়োজন এবং গ্রুপের কার্যক্রম সব সময় পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে সেটা সকল সদস্যের জানতে হবে- এটাই চাচ্ছে ফেসবুক।

তথ্যসূত্র : ডিজিটাল ইনফরমেশন ওয়ার্ল্ড