আলাদা হলো রাবেয়া ও রোকেয়া

আপডেটঃ ১০:০৭ পূর্বাহ্ণ | আগস্ট ০৩, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক :৩৩ ঘণ্টার অস্ত্রোপচারে আলাদা হয়েছে শিশু রাবেয়া ও রোকেয়ার জোড়া লাগানো মাথা।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে এ সফল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়।

গত ১ আগস্ট দিবাগত রাত ১টায় মাথা জোড়া লাগানো জমজ বাচ্চাদের পৃথক করার জটিল অপারেশন শুরু হয়।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) সহকারী পরিচালক রাশেদুল আলম খান এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান, প্রধানমন্ত্রী বদান্যতায় পাবনার চাটমোহরের রফিকুল ইসলাম ও তাসলিমা বেগম দম্পতির ৩ বছর ১৫ দিন বয়সের এই দুই শিশু ২০১৭ সাল থেকেই সামগ্রিক সহায়তা পেয়ে আসছিল। হাঙ্গেরি সরকারের মাধ্যমে ‘অ্যাকশন ফর ডিফেন্সলেস পিপল’ নামক সংগঠনও সক্রিয় সহায়তা করেছে। শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক সামন্ত লাল সেন অস্ত্রোপচারে সমন্বয়কারীর দায়িত্ব পালন করেন।

এর আগে শিশু দুটির দুই স্তরে ‘এন্ডোভাস্কুলার সার্জারি’ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং ৪৮টি ছোট-বড় অপারেশন হাঙ্গেরিতে সম্পন্ন হয়।

অস্ত্রোপচারের সবচেয়ে জটিল অংশ ‘জমজ মস্তিষ্ক’ আলাদা করার কাজটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায়
সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল, ঢাকায় সম্পন্ন হয়। এই অস্ত্রোপচারে হাঙ্গেরির বিশেষজ্ঞদের সাথে সিএমএইচের নিউরো অ্যানেসথেসিওলজিস্টদের তত্ত্বাবধানে, নিউরো ও প্লাস্টিক সার্জনসহ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ, শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউট, হার্ট ফাউন্ডেশন, নিউরো সায়েন্সস ইনস্টিটিউট, সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল ও শিশু হাসপাতালের প্রায় শতাধিক সার্জন ও অ্যানেসথেসিওলজিস্ট এই জটিল অপারেশনে অংশ নেন।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, এ ধরনের অস্ত্রোপচার সারা বিশ্বেই বিরল। উপমহাদেশে এরকম অস্ত্রোপচার এটিই প্রথম। এই অপারেশন বাংলাদেশে সম্পন্ন হওয়ায় বাংলাদেশের চিকিৎসাব্যবস্থার সক্ষমতা আরো বৃদ্ধি পেল। এ ধরনের চিকিৎসা সহায়তা প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও হাঙ্গেরির জনগণের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরো জোরদার হবে।

ঢাকা সিএমএইচ কর্তৃপক্ষ জানায়, এ ধরনের অপারেশন অত্যন্ত জটিল। সাফল্যের হার খুব বেশি নয়। অপারেশনের পর রাবেয়া এবং রোকেয়ার অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। কিন্তু এ ধরনের অস্ত্রোপচারে সর্বদাই অপারেশন-পরবর্তী ঝুঁকি এবং জটিলতা অত্যন্ত বেশি।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দেশবাসীর কাছে রাবেয়া এবং রোকেয়ার দ্রুত সুস্থ্যতার জন্য দোয়া চাওয়া হয়েছে।