মদনে দেয়াল ভাঙা ঘটনায় মামলা,গ্রেফতার -১ প্রধান আসামীর বসত ঘরে লুটপাট

আপডেটঃ ১১:৪০ অপরাহ্ণ | জুন ২০, ২০১৯

মদন (নেত্রকোনা )সংবাদদাতা:নেত্রকোনার মদনে চানগাঁও ইউনিয়নের চাহাম উচ্চ বিদ্যালয়ে দেয়াল ভাঙার ঘটনা নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় বুধবার রাতে ১৪ জনকে আসামি করে বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মাহবুব আলম বাদী হয়ে মদন থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই রাতেই মামলার আসামী শাহীনকে পুলিশ মহিউদ্দিন মার্কেট থেকে গ্রেফতার করে। বৃহস্পতিবার পুলিশ তাকে কোর্ট হাজতে প্রেরণ করেছে।
এ ঘটনার জেরধরে বৃহস্পতিবার সকালে মামলার প্রধান আসামি পুতুল মিয়ার বসত ঘরে হামলা,ভাংচুর চালিয়ে
স্বর্ণালংকারসহ নগদ প্রায় ৯ লাখ টাকা লুটপাট করে নিয়ে গেছে বলে আসামি পুতুল মিয়া অভিযোগে উল্লেখ করেন।

আসামি পুতুল মিয়া জানান,আমাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির স্বীকার করছে,বৃহস্পতিবার সকালে শিক্ষক মাহবুব আলম,সাইদুর রহমান বগীর,নেতৃত্বে ১৫/১৬ জন ধারালো অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে আমার বসত ঘরে হামলা চালায়। হামলাকারীরা আমার ঘরের আলমিরা ভাংচুর করে স্বর্ণালংকারসহ প্রায় ৯ লাখ টাকা নিয়েগেছে। ঘটনার পর উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মোঃ হাবিবুর রহমান,উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার খান এখলাছ,জেলা পরিষদ সদস্য সাইফুল ইসলাম হান্নান আমার বাড়িতে পরিদর্শন করেছেন। আমি এ বিষয়ে মদন থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি।

উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান জানান,ওসিসহ আমি ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছি,পুতুল মিয়ার বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। আপনারাও দেখে আসতে পারেন।

মামলার বাদী শিক্ষক মাহবুব আলম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি পুলিশ পাহাড়ায় বিদ্যালয়ে গিয়ে ছিলাম। তবে গ্রামবাসী এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত।

ওসি মোঃ রমিজুল হক জানান,পুতুল মিয়ার বাড়িতে ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য বুধবার বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ মাহবুব আলম ৪ তলা ভবন নির্মাণের পাহারাদার চানগাওঁ গ্রামের রাহিম উদ্দিনের কাছে বিদ্যালয়ের দেয়াল ভাঙা ও ফাটলের বিষয়ে জানতে চাইলে দুজনের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে দুপক্ষের সংঘর্ষে শিক্ষক মাহবুব আলম লাি তসহ দুজন আহত হয়।