শেষ সময়ে শপিংমলগুলোতে ক্রেতাদের ভিড়

আপডেটঃ ৯:৪৯ পূর্বাহ্ণ | জুন ০৩, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : দরজায় কড়া নাড়ছে মুসলমানদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর। শেষ মুহূর্তে ঈদের কেনাকাটায় নগরীর অভিজাত শপিংমল থেকে শুরু করে ফুটপাতেও এখন ক্রেতার উপচেপড়া ভিড়।

পরিবারের সদস্য ও স্বজনদের চাহিদা মেটাতে পছন্দের পোশাকের খোজে তারা ছুটে বেড়াচ্ছেন এক মার্কেট থেকে অন্য মার্কেটে। রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট পরিণত হয়েছে কেনাকাটার মহোৎসবে। সকাল থেকে শুরু করে মধ্যরাত পর্যন্ত চলছে এ কেনাবেচা।

রোববার দুপুরে বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্সের সামনেও দেখা গেল গাড়ির দীর্ঘ সারি। বেশিরভাগই ক্রেতাদের নিজস্ব গাড়ি। কেউ কিনে বের হচ্ছেন আর কেউ কিনতে ঢুকছেন। ঈদের কেনাকাটা করতে আসা মানুষদের কারণে এসব এলাকাতে যানজট চোখে পড়েছে।

বসুন্ধরা সিটি শপিংমলের জেন্টেল পার্ক শোরুমে পাঞ্জাবি, শার্ট, ছোটদের পোশাকসহ নানান পোশাক বিক্রি হচ্ছে। মানুষের ভিড়ও চোখে পড়ার মতো। তুলনামূলক সবচেয়ে বেশি ভিড় শার্ট ও পাঞ্জাবি।

এছাড়া দেশি কাপড় ও ডিজাইনারদের তৈরি পোশাকের বুটিক হাউসগুলোতে ভিড় বেশি লক্ষ্য করা গেছে। পা ফেলার জায়গা নেই শিশুদের পোশাক ও খেলনা সামগ্রী, কসমেটিক্স ও গহনার দোকানেও। ভিড় বাড়ছে জুতোর দোকানে।

বিক্রেতারা বলছেন, এখন যারা আসছেন তারা কিছু না কিছু নিয়ে বাড়ি ফিরছেন। ঈদের বাকি মাত্র আছে দুই দিন তাই যারা বাড়িতে ঈদ করতে যাবেন তাদের থেকে যারা ঢাকাতে ঈদ করবেন তারাই বেশি ভিড় জমাচ্ছেন। কারণ যারা বাড়িতে ঈদ করবেন তারা রোজার মাঝামাঝি সময়েই কেনাকাটা শেরে ফেলেছেন।

বসুন্ধরা সিটিতে কথা হয় আজিমপুরের বাসিন্দা মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেনের সঙ্গে।

তিনি বলেন, ঈদের বেশি বাকি নেই। আগে মার্কেটে আসিনি কারণ ভিড় বেশি ছিল। এখন আগের তুলনায় কিছুটা ভিড় কম। তাই পড়িবারের সবাইকে নিয়ে পছন্দের সব কিছুই কিনতে এসেছি। পরিবারের সবার জন্যই কিছু না কিছু কিনবো।

রাজধানীর মহাখালী থেকে এসেছেন আদনান হোসেন। তিনি একটি মিডিয়াতে কাজ করেন। আগামীকাল অফিস করে বরিশালের উদ্দেশ্যে তিনি রওনা দিবেন। এ কারণে আজ ছোট ভাইকে নিয়ে এসেছেন কাপড় কিনতে।

তিনি বলেন, এবার শপিংমলগুলোতে অনেক বাহারি বাহারি ডিজাইনের পোশাক পাওয়া যাচ্ছে। তবে দামটা একটু বেশি মনে হচ্ছে।

বসুন্ধরার জেন্টেল পার্ক শোরুমের ম্যানেজার সাইমন রহমান বলেন, দুপুরের পর থেকে দোকানে ক্রেতার চাপ হঠাৎ করে বেড়ে গেছে। এসি থাকা সত্বেও দোকানে গরম অনুভব হচ্ছে।

এদিকে বসুন্ধরার সামনের রাস্তায় গতকাল প্রায় সারা দিনই যানবাহন আর মানুষের ভিড় ছিল। ট্র্যাফিক নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে থাকা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের রীতিমতো হিমশিম খেতে দেখা গেছে।

ঈদ সামনে রেখে বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসে চলছে মূল্যছাড়। ছাড় দেওয়া হচ্ছে নানা ধরনের পোশাক ও ফ্যাশন অনুষঙ্গে। আবার কেনাকাটায় ক্র্যাচকার্ডে দেওয়া হচ্ছে হাজার টাকার পণ্যে নানান উপহার। এছাড়া বিকাশ বা রকেটে বিল পেমেন্ট করলেও পাওয়া যাচ্ছে ১০ থেকে ২০ শতাংশ ক্যাশব্যাক।