‘কানাডীয় গণহত্যা’

আপডেটঃ ৯:৪২ পূর্বাহ্ণ | জুন ০২, ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কানাডায় সহস্রাধিক আদিবাসী নারীকে হত্যা ও গুমের সত্যতা উঠে এসেছে একটি জাতীয় গণতদন্ত প্রতিবেদনে। ওই প্রতিবেদনে একে ‘কানাডীয় গণহত্যা’ বলে মন্তব্য করা হয়েছে।

শুক্রবার কানাডার জাতীয় সম্প্রচারমাধ্যম সিবিসিতে এই প্রতিবেদনটি ফাঁস হয়। এক হাজার ২০০ পৃষ্ঠার প্রতিবেদনটিতে আদিবাসীদের নারীদের এই নির্বিচার সহিংসতার মুখে ফেলার জন্য দেশটির গভীর প্রোথিত উপনিবেশকতাবাদ ও রাষ্ট্রীয় নিস্ক্রিয়তাকে দায়ী করা হয়েছে। সোমবার প্রতিবেদনটি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করার কথা রয়েছে।

কানাডায় ১৬ লাখ আদিবাসীর বসবাস। আদিবাসী নারী ও কিশোরীদের খুন ও গুম হওয়ার বিষয়টি অনুসন্ধানের জন্য দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় তদন্ত প্রতিবেদনের জন্য অপেক্ষা করা হচ্ছিল।

তদন্ত প্রতিবেদনের দাবিতে আন্দোলনকারীদের একজন রবিন বরিজিওইস বলেন, ‘এই মুহূর্তটি পেতে ৪০ বছর সময় লেগেছে এবং এর একমাত্র কারণ হচ্ছে আদিবাসী নারীরা ভিত্তিমূলের আন্দোলন করছিলেন।’

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৯৮০ সাল থেকে প্রায় এক হাজার ২০০ আদিবাসী নারী খুন অথবা নিখোঁজ হয়েছে। তবে অনেক অধিকারকর্মীর দাবি , এই সংখ্যা বাস্তবে অনেক বেশি।

২০১৪ সালে টিনা ফনটেইন নামের এক আদিবাসী কিশোরী খুনের পর আদিবাসী নারী ও কিশোরীদের নিরাপত্তা নিয়ে ব্যাপকভাবে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয় এবং বিষয়টি জাতীয় সমর্থন জোগাড় করতে সক্ষম হয়।