স্টেইন-রাবাদাদের বাউন্সারে ভয় নেই বাংলাদেশের

আপডেটঃ ৯:২৬ পূর্বাহ্ণ | জুন ০২, ২০১৯

ক্রীড়া প্রতিবেদক :শরীরের ওপর তাক করা বাউন্স আসবে হরহামেশাই। শর্ট বল আসবে ঝড়ো গতিতে। ডেডলি ইয়র্কারও থাকতে পারে। বাতাসের সাথে ইনসুইং, আউট সুইং মোকাবেলা করতেই হবে একটু পরপরই।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আজকের ম্যাচে ওভালে ব্যাটসম্যানদের কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে যত আলোচনা ডেইল স্টেইন, কাগিসো রাবাদা কিংবা লুঙ্গি এনগিডি, আন্দ্রিলে ফেলুকওয়েদের বাউন্সার নিয়ে। এশিয়ার বাইরের দলগুলো যারা বিশ্বকাপে অংশ নিচ্ছে তাদের মূল অস্ত্রই থাকছে বাউন্সার।

পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলিং, আফগানিস্তানের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিউজিল্যান্ডের বোলিং দেখলেই বোঝা যায় তাদের মূল পরিকল্পনা কি। প্রোটিয়া পেসাররা এ পরিকল্পনাতেই রয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে তাদের বাউন্সারে ভয় নেই বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের। অধিনায়ক মাশরাফি জানালেন, বাউন্সার প্রতিহত করতে যথেষ্ট প্রস্তুতি নিয়েছেন ব্যাটসম্যানরা। সবশেষ আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ থেকেই শর্ট বল ও বাউন্সার ভালোভাবে খেলছে ব্যাটসম্যানরা।

ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে ব্যাটসম্যানদের বাউন্সার সামলানোর দক্ষতা নিয়ে বিদেশি সাংবাদিক জানতে চেয়েছিল মাশরাফির কাছে। সোজাসাপ্টা উত্তর দিয়েছেন অধিনায়ক। ‘বাউন্সার ওরা করবে, সেটাই স্বাভাবিক। প্রস্তুতি এটাতো ম্যান টু ম্যান ভেরি করে। প্রত্যেকটা ব্যাটসম্যানই জানে এখানে পরীক্ষায় পড়তে হবে। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে এই পরীক্ষায় খুব ভালো করেই উৎরে গেছে ব্যাটসম্যানরা। এখানে আত্মবিশ্বাসটাও গুরুত্বপূর্ণ। প্রস্তুতিতো আছেই আমাদের। আমি গ্যারান্টি দিতে পারি না তারা সফল হবে। তারা প্রস্তুতি নিয়েছে, সেই গ্যারান্টি আমি দিতে পারি।’

প্রস্তুতি দেশ থেকে ভালোভাবেই নিয়েছেন ব্যাটসম্যানরা। স্লাবে ব্যাটিং করেছেন মুশফিক, তামিম, সৌম্য, মিথুনরা।  বোলিং মেশিনে গতির সঙ্গে বাউন্স অনুশীলনও হয়েছে। থ্রো ডাউনে হাজারো বল নক করেছেন প্রত্যেকে। এবার সেগুলো মাঠে ঠিকমতো সামলানোর পালা।  ইনজুরি থেকে বোলিংয়ে ফেরা ডেল স্টেইন বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলবেন কিনা তা এখনও নিশ্চিত নয়। ক্রিস মরিসের অবস্থাও তাই।  দুজনের থেকে স্টেইন হতে পারে বড় এক্স-ফ্যাক্টর।  তবে স্টেইন থাকা না থাকা নিয়ে মাশরাফি ভাবতে নারাজ।  ‘সেগুলো নিয়ে ভাবা আসলে বোকামি হবে। ডেল স্টেইনের জায়গায় যে খেলেছে সে খুব একটা খারাপ করেনি। বিগ ডিল না এটা। মূল কথা হচ্ছে আমাদের প্রসেস ঠিক রাখা। পুরো ম্যাচটা আমরা যদি ভালো ক্রিকেট খেলতে পারি তাহলে সম্ভাবনা