ওড়িষায় ৮ লাখ মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে

আপডেটঃ ৫:৫০ অপরাহ্ণ | মে ০২, ২০১৯

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক : প্রায় আট লাখ মানুষকে ভারতের ওড়িষা রাজ্যের উপকূলীয় অঞ্চল থেকে সরিয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে নেওয়া হচ্ছে।  ঘূর্ণিঝড় ‘ফণি’ শক্তি সঞ্চয় করে  ওড়িষা উপকূলের দিকে এগোতে শুরু করায় তাদের সরিয়ে নেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার জানিয়েছে বিবিসি ও আনন্দবাজার অনলাইন।

ঘন্টায় ১২৭ মাইল বাতাসের বেগ নিয়ে ‘ফণি’ অগ্রসর হচ্ছে। শুক্রবার সকাল নাগাদ এটি ওড়িষা উপকূলে আঘাত হানতে পারে।

ভারতের আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, ওড়িষার ১৯টি জেলায় ‘ফনির’ প্রভাব পড়তে পারে। এছাড়া প্রভাব পড়বে পশ্চিমবঙ্গ এবং অন্ধ্রপ্রদেশের তিনটি জেলায়। ১ মে থেকে ৫ মে মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করেছে আবহাওয়া দপ্তর। রাজ্যের সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে ইতিমধ্যে সমস্ত পর্যটকদের হোটেল ছেড়ে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে ওড়িষা সরকার। বাঙালি পর্যটকদের জন্য পুরী-কলকাতা বিশেষ বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া ১০৩টি ট্রেনের যাত্রা বাতিল করা হয়েছে।

পুরী, কেন্দ্রাপড়া, বালেশ্বর, ময়ূরভঞ্জ, গজপতি, কটক, জাজপুরসহ আট লাখেরও বেশি মানুষকে ওড়িষা উপকূলবর্তী অঞ্চল থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ৮৭৯-এরও বেশি সাইক্লোন সেন্টার তৈরি করা হয়েছে। উপকূলবর্তী অঞ্চলের মানুষদের এই সাইক্লোন সেন্টারেই আপাতত রাখা হয়েছে। নৌবাহিনী, উপকূল রক্ষা বাহিনী এবং বির্পযয় মোকাবিলা বাহিনীর ৭৮টি দল  উপকূলবর্তী অঞ্চলগুলোতে পাঠানো হয়েছে।