শরীরের যেখানে পারফিউম লাগাবেন না

আপডেটঃ ৯:১৪ পূর্বাহ্ণ | এপ্রিল ২৮, ২০১৯

লাইফস্টাইল ডেস্ক : পারফিউমের সুবাস কে না ভালোবাসে? নিজেকে অন্যের কাছে আকর্ষণীয় করতে পারফিউম ব্যবহারের প্রবণতা অনেকেরই রয়েছে। কিন্তু শরীরের যত্রতত্র পারফিউম ছিটানো উচিত নয়, কারণ এতে স্বাস্থ্য সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। শরীরের কোন কোন জায়গায় পারফিউম ব্যবহার করবেন না তা সম্পর্কে আসুন জেনে নিই।

* চোখ
শরীরের সবচেয়ে স্পর্শকাতর জায়গাগুলোর তালিকায় চোখ শীর্ষ স্থান দখল করে নিয়েছে। অত্যধিক স্পর্শকাতর এ স্পটের কাছে পারফিউম ছিটানো থেকে বিরত থাকা উচিত। অ্যালকোহল-বেসড পারফিউমে ইথাইল থাকে, এমনকি কোনো কোনো পারফিউমে ৯৫ শতাংশ ইথাইল থাকে। এটি চোখে জ্বালাপোড়া ও হুল ফোটানোর মতো অনুভূতির উদ্রেক করতে পারে।

* চুল
চুল প্রাকৃতিকভাবে সেন্ট শুষে নেয়, যেকারণে সাধারণ দৃষ্টিতে মনে হতে পারে যে চুলে সুবাস ছিটানো ভালো ধারণা। কিন্তু অ্যালকোহল-বেসড পারফিউম চুলকে শুষ্ক করে তোলে, বিশেষ করে সরাসরি চুলে পারফিউম ছিটানো হলে। এর পরিবর্তে কসমোপলিটান ডটকম চুলের ব্রাশে পারফিউম ছিটিয়ে হালকাভাবে চুল আঁচড়াতে পরামর্শ দিচ্ছে, এতে চুলের ক্ষতি এড়ানো সম্ভব হবে।

* হাত
সারাদিন সুঘ্রাণ ছড়ানোর জন্য হাতের কবজিতে পারফিউম প্রয়োগ সবচেয়ে জনপ্রিয় পদ্ধতিগুলোর একটি হলেও এ প্রক্রিয়ায় দুর্ঘটনাক্রমে আপনার হাতে অ্যালকোহল-বেসড পারফিউম চলে আসলে ত্বক শুষ্ক হতে পারে, যার সম্ভাব্য পরিণতি ত্বকে ফাটল ও রক্তক্ষরণ। এছাড়া হাতে পারফিউম থাকা অবস্থায় চোখ কচলালে জ্বালাপোড়া অনুভব হতে পারে।

* বগল
যেহেতু বগল থেকে দুর্গন্ধ ছড়ায়, তাই আপনার মনে হতে পারে যে সেখানে পারফিউম প্রয়োগ ভালো ধারণা। কিন্তু বগলে পারফিউমের ব্যবহারে জ্বালাপোড়া অনুভব করার সম্ভাবনা বেশি। পারফিউম ও বগলের ঘর্মগ্রন্থির মধ্যকার পারস্পরিক ক্রিয়া চুলকানি ও জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করতে পারে।

* গোপনাঙ্গ
শরীরের প্রাইভেট স্পট বা গোপনাঙ্গে পারফিউমের ব্যবহারও ত্বককে শুষ্ক করতে পারে। দিস ইজ ইনসাইডারের স্বাস্থ্য প্রতিবেদনে উল্লেখ আছে, নারীদের ক্ষেত্রে সুবাস যোনিকে উক্ত্যক্ত করে প্রদাহ, চুলকানি ও ব্যথা সৃষ্টি করতে পারে।

* কোথায় পারফিউম ছিটাবেন?
পারফিউম ছিটানোর জন্য শরীরের সবচেয়ে ভালো স্থান হলো পালস পয়েন্ট, যার মধ্যে কবজি, ঘাড় ও হাঁটুর পেছনভাগ অন্তর্ভুক্ত। এসব তাপ নির্গতকারী স্থানে সুবাস ছিটালে ত্বকে জ্বালাপোড়া হবে না।