জাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে সম্মিলিত শিক্ষক সমাজের জয়

আপডেটঃ ৯:৫১ পূর্বাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ০১, ২০১৯

সি এন এ প্রতিবেদক : জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) শিক্ষক সমিতির নির্বাহী পরিষদ নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু আদর্শের শিক্ষক পরিষদ ও সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ দুই প্যানেলের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে।

নির্বাচনে ১৫টি পদের মধ্যে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ মোট ১০টি পদে জয়লাভ করেছে উপাচার্য বিরোধী শিক্ষকের সংগঠন ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’।

অন্যদিকে সহ সভাপতির একটি পদসহ মোট ৫টি পদে জয়লাভ করেছেন উপাচার্যপন্থী শিক্ষকের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু আদর্শের শিক্ষক পরিষদ’।

নির্বাচন কমিশনার নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের অধ্যাপক ড. এ কে এম আবুল কালাম বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে নির্বাচনের ফল ঘোষণা করেন।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ক্লাবে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলে। নির্বাচনে ৫৮১ জন ভোটারের মধ্যে মোট ৫৪৯ জন শিক্ষক তাদের ভোটাধিকার প্রদান করেন।

নির্বাচনে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামপন্থী শিক্ষকরা ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শিক্ষক পরিষদ’ এবং সাবেক উপাচার্য ড. শরীফ এনামুল কবীরপন্থীরা ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’ প্যানেল থেকে নির্বাচনে অংশ নেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামী পন্থীদের একাংশ, বিএনপি ও বামপন্থী শিক্ষকদের জোট ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’ গঠন করে।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’ প্যানেল থেকে ২৯৩ ভোট পেয়ে সভাপতি পদে বিজয়ী হয়েছেন পরিসংখ্যান বিভাগের অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মো. আব্দুল মান্নান চৌধুরী পেয়েছেন ২৩৮ ভোট।

সাধারণ সম্পাদক পদে ২৯২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক কৌশিক সাহা। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক বশির আহমেদ পেয়েছেন ২৪৩ ভোট।

কোষাধ্যক্ষ পদে ২৯০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মো. মনোয়ার হোসেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আইবিএ অনুষদের অধ্যাপক মো. মোতাহার হোসেন পেয়েছেন ২৪৪ ভোট।

এছাড়াও যুগ্ম সম্পাদক পদে ১৬৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক লাইজু নাসরীন।

তারা সকলেই সাবেক উপাচার্য ড. শরীফ এনামুল কবীরপন্থী ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’ প্যানেলের প্রার্থী।

যুগ্ম-সম্পাদক পদে বিজয়ী হয়েছেন উপাচার্য ড. ফারজানা ইসলামপন্থী ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শিক্ষক পরিষদ’ প্যানেলের প্রার্থী অধ্যাপক যুগল কৃষ্ণ দাস। তিনি ২৮৪ ভোট পেয়ে নির্বাচনে জয়লাভ করেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক কৌশিক সাহা পেয়েছেন ২৪৭ ভোট।

এছাড়া ১০টি নির্বাহী সদস্য পদের মধ্যে ৬টিতে বিজয়ী হয়েছেন শরীফ এনামুল কবীরপন্থী ‘সম্মিলিত শিক্ষক সমাজ’। এই প্যানেল থেকে বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক মাহবুব কবির, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ফরিদ আহমদ, অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক মো. আমজাদ হোসেন, সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক মো. শামসুল আলম, পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ হাফিজুর রহমান এবং নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস।

নির্বাহী সদস্য পদে অপর ৪টি পদে বিজয়ী হয়েছেন ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শিক্ষক পরিষদ’। এই পরিষদ থেকে বিজয়ী সদস্য প্রার্থীরা হলেন পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এ. এ. মামুন, নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক রাশেদা আখতার, অর্থনীতি সহযোগী অধ্যাপক আয়শা সিদ্দিকা এবং ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহফুজা খাতুন।

সুষ্ঠ ও উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন করায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান। অপরদিকে নির্বাচিতরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নের জন্য সকলকে নিয়ে কাজ করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন।