দুই দফায় ইজতেমা : রিট শুনানি আজ

আপডেটঃ ৯:৫২ পূর্বাহ্ণ | জানুয়ারি ২২, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক:রাজধানীর অদূরে টঙ্গীর তুরাগ তীরের অনুষ্ঠিত তাবলিগ জামাতের সর্ববৃহৎ বার্ষিক জমায়েত বিশ্ব ইজতেমা নিয়ে জারি করা দুটি সার্কুলার চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিটের শুনানি আজ (মঙ্গলবার)। হাইকোর্টের বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে এ রিট শুনানি হতে পারে।

সোমবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. ইউনুস মোল্লার পক্ষে জনস্বার্থে অ্যাডভোকেট শাহ্ মো. নুরুল আমিন এ রিট আবেদন করেন। পরে রিটের বিষয়টি তিনি নিজেই  নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, রিট আবেদনে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ তিনজনকে বিবাদী করা হয়েছে।

অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মোতাহার হোসেন সাজু রিটের বিষয় নিশ্চিত করে আরও জানান, এ রিটের বিষয়ে মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

আইনজীবী মো. ইউনুস মোল্লা জানান, মন্ত্রী পরিষদের কোনো সিদ্ধান্ত এককভাবে ধর্ম মন্ত্রণালয় কখনো বাতিল করতে পারেন না। তাই আমি তাবলীগ জামাতের চিল্লার সাথী হিসেবে জনস্বার্থে এ রিট করেছি।

আইনজীবী আরও বলেন, টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে বিশ্ব ইজতেমা করার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়েছে। একই সঙ্গে, বাংলাদেশে তবলিগের কার্যক্রম শান্তিপূর্ণভাবে পরিচালনার লক্ষ্যে পাঁচ দফা নির্দেশনা দিয়ে গতবছর ১৮ সেপ্টেম্বর ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা পরিপত্র পুনর্বহাল চাওয়া হয়েছে।

একই সঙ্গে ওই পরিপত্র স্থগিত করে একই বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর জারি করা পৃথক পরিপত্র কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না -তা জানতে চেয়ে রুল জারির আবেদন জানানো হয়েছে।

তাবলিগ জামাতের বিরোধ মিটিয়ে বাংলাদেশে বিশ্ব ইজতেমা আয়োজনের উদ্যোগ নেয় সরকার। এরই অংশ হিসেবে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দলের আজ মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) ভারতের দেওবন্দ যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এ সিদ্ধান্তের কথা জানার পর গত ১৭ জানুয়ারি দেওবন্দ মাদরাসা কর্তৃপক্ষ সেখানে তাবলিগ জামাত নিয়ে সব ধরনের সভার ও পর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।

তাবলিগ জামাতের দুই গ্রুপের দ্বন্দ্বের মধ্যে পরিস্থিতি মোকাবেলায় ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে ২০১৮ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর এক পরিপত্র জারি করা হয়।উপসচিব দেলোয়ারা বেগমের স্বাক্ষরে জারি করা পরিপত্রে উভয় গ্রুপের জন্য পাঁচদফা নির্দেশনা দেওয়া হয়।