বলিউডে অভিষেক প্রসঙ্গে যা বললেন নিথিয়া

আপডেটঃ ৮:৫৬ পূর্বাহ্ণ | নভেম্বর ১১, ২০১৮

বিনোদন ডেস্ক : ভারতের দক্ষিণী সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী নিথিয়া মেনন। ২০০৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত কন্নড় ভাষার সেভেন ও’ক্লক সিনেমার মাধ্যমে নায়িকা হিসেবে পর্দায় অভিষেক হয় তার। এরপর উস্তাদ হোটেল, বেঙ্গালুরু ডেজ, হানড্রেড ডেজ অব লাভসহ বেশ কিছু জনপ্রিয় সিনেমা উপহার দিয়েছেন তিনি।

মিশন মঙ্গল সিনেমার মাধ্যমে বলিউডে পা রাখতে চলেছেন নিথিয়া। সিনেমাটিতে তাকে একজন বিজ্ঞানীর চরিত্রে দেখা যাবে। এ প্রসঙ্গে নিথিয়া মেনন বলেন, “নির্মাতারা আমাকে বলেছিলেন, ‘আমরা একটি মজার সিনেমা তৈরি করছি, এতে তোমাকে বিজ্ঞানী চরিত্রে দেখতে চাই।’ তারা আমাকে আরো জানায়, অক্ষয় কুমারও চান আমি সিনেমাটিতে অভিনয় করি।”

এ অভিনেত্রী আরো বলেন, ‘এর আগে হিন্দি সিনেমায় অভিনয়ের অনেক প্রস্তাব পেয়েছি। আমি অন্যান্য সিনেমার মতো হিন্দির ব্যাপারেও খুব চুজি। আমি সবসময়ই চেয়েছি, আমার প্রথম হিন্দি সিনেমা যেন অনেক ভালো হয়। এই সিনেমায় আমার চরিত্রটি খুবই চমৎকার। আমার মনে হয় না, এর আগে আমরা এ ধরনের সিনেমায় অভিনয় করেছি।’

সিনেমাটিতে বিদ্যা বালানকেও দেখা যাবে। নিথিয়া ও বিদ্যা একসঙ্গে কিংবদন্তি অভিনেতা-রাজনীতিবিদ এনটি রামা রাওয়ের বায়োপিকেও অভিনয় করছেন। এ অভিনেত্র্রী বলেন, ‘বিদ্যা ও আমার দেখা হয় এনটিআর-এর বায়োপিকের শুটিংয়ে। আমাদের একসঙ্গে একটি দৃশ্য রয়েছে। তিনি আমাকে জানিয়েছেন, আমার ওকে কানমানি ও বেঙ্গুলুরু ডেজ সিনেমা দেখেছেন।’

মিশন মঙ্গল সিনেমাটিতে নিথিয়া মেনন ও বিদ্যা বালান ছাড়া আরো অভিনয় করছেন- অক্ষয় কুমার, তাপসী পান্নু, শারমান জোশি, কীর্তি কুলহারি, প্রমুখ।

বলা হচ্ছে, মহাকাশ নিয়ে এটি প্রথম বলিউড সিনেমা।

জানা গেছে, ভারতীয় উপগ্রহ ‘মঙ্গলায়ন’ মহাকাশে পাঠানোর অভিযানকে নিয়ে সিনেমার গল্প তৈরি হয়েছে। অক্ষয় কুমার, বিদ্যা বালানসহ আরো তিনজন অভিনেত্রীকে বিজ্ঞানীর চরিত্রে দেখা যাবে। সিনেমায় তাদের প্রত্যেকের চরিত্র বেশ গুরুত্বপূর্ণ। এটি পরিচালনা করবেন জগন শক্তি। অক্ষয় কুমারের কেপ অব গুড ফিল্মস ও ফক্স স্টারসের সঙ্গে সিনেমাটির সহ প্রযোজনায় রয়েছেন আর বালকি।

মঙ্গলায়ন মহাকাশযানটি ২০১৪ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে মঙ্গলের কক্ষপথে ঘুরছে। এই যানটি ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো ২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর মহাকাশে পাঠিয়েছিল। এটি একটি ‘প্রযুক্তি প্রদর্শক’ অভিযান। এর লক্ষ্য গ্রহ থেকে গ্রহে চলাচলের উপযুক্ত যানের উপযোগী নকশা, পরিকল্পনা, পরিচালনা ও কার্যক্রমের বিকাশ ঘটানো।