বিবাহবিচ্ছেদ নিয়ে আমিরের স্মৃতিচারণ

আপডেটঃ ৯:১৫ পূর্বাহ্ণ | নভেম্বর ০৬, ২০১৮

বিনোদন ডেস্ক : বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা আমির খান। ১৯৮৬ সালে রীনা দত্তর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন এই অভিনেতা। তাদের সংসার আলো করে আসে পুত্র জুনায়েদ ও কন্যা ইরা।

‘কেয়ামত সে কেয়ামত তক’ চলচ্চিত্রের একটি গানে কিছুক্ষণের জন্য হাজির হয়েছিলেন রীনা। ২০০১ সালে ‘লগান’ সিনেমার প্রযোজক হিসেবে কাজ করেন তিনি। কিন্তু ২০০২ সালে ১৬ বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টানেন এই দম্পতি। সেসব স্মৃতি মোটেই সুখকর ছিল না এই অভিনেতার। কয়েক দিন আগে রীনার সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের বিষয়ে ভারতীয় একটি টেলিভিশনে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কথা বলেছেন আমির খান।

স্মৃতিচারণ করে আমির খান বলেন, ‘অনেক অল্প বয়সে আমাদের বিয়ে হয়েছিল। তখন সংসারের বিষয়ে আমরা দু’জনে প্রায় কিছুই জানতাম না। আমাদের ১৬ বছরের বিবাহিত জীবন ছিল। যখন সংসার ভেঙে গেল, ওই সময়টা আমাদের দুজনের জন্যই ভয়াবহ ছিল। ওই সময়টা আমাদের পরিবারের জন্যও খুব কঠিন ছিল।’

রীনার প্রশংসা করে আমির বলেন, ‘রীনা আমার জীবনকে নানাভাবে সমৃদ্ধ করেছে।  রীনার প্রতি আমার ভালোবাসা বা সম্মান কোনোটাই কম ছিল না। রীনা অসম্ভব ভালো একজন মানুষ। রীনার সঙ্গে আমার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক এখনো অটুট রয়েছে!’

আমির খান অভিনীত ‘লগান’ সিনেমাটি ২০০১ সালে মুক্তি পায়। এ সিনেমায় সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেন কিরণ রাও। ২০০৫ সালে ২৮ ডিসেম্বর এই কিরণ রাওয়ের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন আমির খান। ২০১১ সালে এ দম্পতির কোলজুড়ে আসে পুত্রসন্তান আজাদ।

তবে আমিরের প্রাক্তন স্ত্রী রীনার সঙ্গে বর্তমান স্ত্রী কিরণ রাওয়ের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। এ প্রসঙ্গে আমির খান বলেন, ‘কিরণ ও রীনার মধ্যে অত্যন্ত বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। কিন্তু এতে আমার কোনো ভূমিকা নেই। ভালো সম্পর্কের রসায়নটা ওরা দুজনই ভালো জানে।’

আমির খান অভিনীত পরবর্তী সিনেমা ‘থাগস অব হিন্দোস্তান’। এতে আমিরের চরিত্রের নাম ফিরাঙ্গি। এছাড়াও এতে অভিনয় করেছেন-অমিতাভ বচ্চন, ক্যাটরিনা কাইফ, ফাতিমা সানা শেখ প্রমুখ। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন বিজয় কৃষ্ণ আচার্য। আগামী ৮ নভেম্বর সিনেমাটি মুক্তির কথা রয়েছে।