কর্ত্তিমারী ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ২বছরেও চালু হয়নি

আপডেটঃ ৮:৫৯ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ২০, ২০১৮

মোস্তাফিজুর রহমান তারা, রৌমারী (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতাঃ কর্ত্তিমারী ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনটি ২ বছরেও চালু হয়নি।প্রায় সারে ৩ কোটি টাকা ব্যায়ে ২০১৫ সালে ফেব্রুয়ারী মাসে ফায়ার সার্ভিস নির্মাণের কাজ শুরু হয়। ২ বছরে কাজটি সম্পুর্ণ করা হয়। কর্ত্তিমারী ফায়ার সার্ভিসটি মূলত কর্ত্তিমারীতে নির্মিত হয়নি। ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছে রৌমারী উপজেলা সংলগ্ন। কর্ত্তিমারী ফায়ার সার্ভিসটি প্রথমে কর্ত্তিমারীতে ভবন নির্মাণের জায়গা নির্ধারণ করা হয়। সেই সুত্রে কত্তিমারী ফায়ার সার্ভিস হিসেবে মন্ত্রনালয় থেকে কর্ত্তিমারী ফায়ার সার্ভিস নামে গ্যাজেট প্রকাশিত হয়। পরে সেখানে জায়গার সমস্যা থাকায় এখানকার পরিবর্তে রৌমারীতে ভবনটি নির্মাণ করা হয়। ভবনটি রৌমারী সদরে নির্মাণ হলেও অন্য ইউনিয়নের নামে নাম করণ করা হয়েছে। ূূূ
রৌমারী জেলা থেকে ১৫টি নদ-নদী দ্বারা যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন একটি উপজেলা। উপজেলাটি ১৯৮টি গ্রামের সমন্বয়ে গঠিত। যেখানে জনসংখ্যা প্রায় ৪ লাখ। ঘন-বসতি পুর্ণ এঅ লের মানুষের প্রাকৃতিক দূর্যোগের হাত থেকে রক্ষার একমাত্র ভরসা আল্লাহ। শত বছরের এঅ লে কোন ফায়ার সার্ভিস ছিলনা। ২০১৫ সালে ফায়ার সার্ভিস নির্মাণ হওয়ায় এলাকার মানুষের মাঝে অনেকটা স্বস্থি ফিরে আসলেও নির্মাণের ২ বছর অতিবাহিত হলেও ফায়ার সার্ভিসটি আজও চালু হয়নি। প্রতি বছরই শুস্ক মৌসুমে অগ্নি-কান্ডে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হয়। প্রবাদ আছে, আছে গরু না বয় হাল তার দুঃখ সর্বকাল। তাই রৌমারীতে ফায়ার সার্ভিসের ভবন আছে, গাড়ী নেই, জনবল নেই। যাহা জনগণের কোন কাজে আসছেনা। তাই এরাকা-বাসীর প্রাণের দাবী দ্রুত ফায়ার সার্ভিসটি চালু করে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবল থেকে রক্ষা করতে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।