ফ্ল্যাট, বাড়ি ও জমি ভাতিজাদের লিখে দিয়েছেন ফালু

আপডেটঃ ৯:২১ পূর্বাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : খালেদা জিয়ার প্রাক্তন উপদেষ্টা মোসাদ্দেক আলী ফালু দুবাই অবস্থান করে বাংলাদেশে থাকা তার ‘অবৈধ সম্পদের’ মধ্যে পাঁচটি ফ্ল্যাট, একাধিক বাড়ি ও জমি দুই ভাতিজার নামে লিখে দিয়েছেন এমন একটি অভিযোগের অনুসন্ধানে নেমেছে দুর্নীতি কমন কমিশন (দুদক)।

কমিশন থেকেই অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর মঙ্গলবার দুদকের সহকারী পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধানকে অনুসন্ধান কর্মকর্তা হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে। দুদকের একটি ঊর্ধ্বতন সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

দুদক সূত্র জানায়, মোসাদ্দেক আলী ফালু তার দুই ভাতিজা মো. আশফাক উদ্দীন আহমেদ ও নাঈম উদ্দীন আহমেদের নামে ওই সব সম্পত্তি ‘পাওয়ার অব অ্যাটর্নি’ দলিল করেছেন। ফালু দুর্নীতির মাধ্যমে এসব সম্পত্তি অবৈধভাবে অর্জন করেছেন এবং তা রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত হয়ে যাওয়ার ভয়ে তিনি তার দলিলের মাধ্যমে দুইজনকে দিয়ে দিয়েছেন। এসব দলিল সম্পাদনের ক্ষেত্রে অবৈধভাবে ‘লাভবান’ হয়ে দুবাই থেকে বাংলাদেশের ভাইস কনস্যুলার মো. মেহেদুল ইসলাম ও বাংলাদেশ থেকে সহকারী পররাষ্ট্র সচিব মো. মাসুদ পারভেজ ফালুকে সহযোগিতা করেছেন বলে অভিযোগে বলা হয়েছে।

অভিযোগে আরো বলা হয়, মোসাদ্দেক আলী ফালু তেজগাঁও, ধানমন্ডি, উত্তরা এবং গুলশান সাব-রেজিস্ট্রার এলাকায় থাকা তার পাঁচটি ফ্ল্যাট ও এসব ফ্লাটের পার্কিংয়ের স্থানসহ অন্যান্য সম্পত্তি রোজা প্রোপার্টির দুই পরিচালক আশফাক উদ্দীন ও নাঈম উদ্দীনকে দলিল করে দিয়েছেন।

এ ছাড়া তেজগাঁও শিল্প এলাকায় বাড়ির ভূমি ২ দশমিক ৫২০২ কাটা; তেজগাঁও মোজার ৬৬০ অজুতাংশ বাড়ি ভূমি; উত্তরখান মোজার ৩৪ শতাংশ ভিটি ভূমি ও এসব ভূমির ওপর ৬৪টি দোকান এবং জোয়ার সাহারা মৌজার ২৪৭ দশকিম ৫০ অজুতাংশ ভিটি ভূমি ফালু দলিল করে দিয়ে দিয়েছেন বলে অভিযোগে বলা হয়।