কী কথা তার সনে?

আপডেটঃ ১১:০২ অপরাহ্ণ | জুন ১০, ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কানাডায় সদ্য শেষ হওয়া জি-সেভেন সম্মেলনের শতাধিক ছবি গত দুদিনে গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে জমা হয়েছে। তবে স্রেফ একটি ছবি শুধু গণমাধ্যম কর্মী নয় বরং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীদের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে এসেছে। কারণ ওই ছবিটিতে জি-সেভেন সদস্য দেশগুলোর নেতাদের মধ্যকার সম্পর্ককে প্রায় স্পষ্ট করে ফুটে উঠেছে।

শনিবার জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মের্কেরের দপ্তর থেকে ছবিটি প্রকাশ করা হয়। ছবিতে মের্কেলকে একটি লম্বা ও সরু টেবিলের ওপর দুই হাতে ভর দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। তার হাতের নিচে কোনাকুনিভাবে পড়ে আছে কিছু নথি, ভাবলেশহীনভাবে তিনি তাকিয়ে আছেন টেবিলের অপরপ্রান্তে বসে থাকা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দিকে। মের্কেলের ডানে-বামে ও পেছনে দাঁড়িয়ে আছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রন, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোসহ জি-সেভেনভুক্ত দেশগুলোরা নেতা ও তাদের সহকারীরা।

দুই হাত বুকের নিচে মুড়ে বসে থাকা ট্রাম্পের দৃষ্টি অবশ্য সরাসরি মের্কেলের দিকে ছিল না। তার চেহারার অভিব্যক্তিও ছিল ভাবলেশহীন। ট্রাম্পের অনুভূতি তখন কেমন ছিল? ক্রুদ্ধ? বিরক্ত? নাকি আনন্দিত?

ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়াম আমদানিতে যুক্তরাষ্ট্রের শুল্ক আরোপ নিয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও কানাডার সঙ্গে ট্রাম্প প্রশাসনের যে মতবিরোধ চলছে তার প্রায় পুরো  ছাপটি এই ছবিতে পাওয়া যাচ্ছে বলে গণমাধ্যম কর্মীরা জানিয়েছেন। বৈঠক ছেড়ে চলে যাওয়া ট্রাম্পের টু্ইটার বার্তা তারই ইঙ্গিত দিচ্ছে। শনিবার টুইটার বার্তায় তিনি কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোকে ‘অসৎ ও দুর্বল’ বলে মন্তব্য করেছেন।

জি-সেভেন নেতাদের এই ছবি কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মেমে হিসেবে ব্যবহার করতে শুরু করেছেন। কেউ কেউ আবার ট্রাম্প-মের্কেল কী বলেছেন তার একটি কল্পিত চিত্রও আঁকার চেষ্টা করেছেন।

জশ জর্ডান নামে একজন লিখেছেন-

মের্কেল : আমি যখন বলব ‘শুল্ক খারাপ’ এবং আপনার পায়ের পাতায় চাপ দেব তখন আপনি হাসবেন ও তাকাবেন।

ট্রাম্প : কিস্তি!

মের্কেল : (ট্রাম্পের পায়ের পাতার ওপর পা রেখে) শুল্ক হচ্ছে ভোক্তার ওপর আরোপিত কর এবং এটা অর্থনীতিকে ব্যাহত করবে।

ট্রাম্প : (জ্বলজ্বলে চোখে তাকিয়ে ঘুরে অ্যাবেকে ফিসফিস করে )আমার মনে হয় সে তোমাকে এসব কথা বলছে।