খনিজ সম্পদ অনুসন্ধান রৌমারীতে ড্রিলিং কাজের শুভ উদ্ভোধন

আপডেটঃ ৫:০৬ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ২২, ২০১৮

মোস্তাফিজুর রহমান তারা, রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি:কুড়িগ্রামের রৌমারীতে স্তরতাত্ত্বিক তথ্য সংগ্রহ ও অর্থনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ খনিজ সম্পদ অনুসন্ধানে ড্রিলিং কার্যক্রমের উদ্বোধন আজ রবিবার দুপুরে করা হয়। দুপুর সাড়ে ১২ টায় উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের কাউনিয়ার চর গ্রামে জিএসবির মহাপরিচালক রেশাদ মাহুমদ ইকরাম আলী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিতি থেকে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করে। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন সিরাজুল ইসলাম খাঁন, মহাপরিচালক অবঃ জিএসবি ঢাকা ও সাইফুল হোসেন, পরিচালক ভূত্ত্ববিদ জিএসবি এছাড়াও সভাপতিত্ব করেন খোন্দকার রবিউল ইসলাম, উপ-পরিচালক (ড্রিলিং প্রকৌশল) । অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মাছুম আহমেদ, সহকারি পরিচালক (ভূ-ত্ব) এবং রৌমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোন্তাসির বিল্লা (ওসি তদন্ত), থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রুহুল আমিন এবং স্থানীয় ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান ও স্থানীয় সাংবাদিকসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিল। পর্বে ভুত্তাত্তিক এবং ভূপদার্থিক সার্ভে করা হয়েছে। তার আলোকে ড্রিলিং কাজ শুরু করা হয়। এটি বাংলাদেশের জিডিএইচ-৭২/১৮। যাহা জিওলজিক্যাল ড্রিল হোল নং ৭২। প্রাথমিক ভাবে পহেলা এপ্রিল থেকে ৩০জুন পর্যন্ত অনুসন্ধান কাজ চলবে বলে জানান।
এতে কর্মকর্তা ও কর্মচারী হিসেবে নিয়োজিত ড্রিলিং কাজের প্রকৌশলী ৪জন, ভূতত্ববিদ ৬জন ড্রিলিং ফোরম্যাণ ১ জন, মাদ সুপারভাইজার ১ জন ও ড্রিলিং, মেকানিক ড্রাইভারসহ সহকারি ১৮ জন। এতে ব্যবহার করা হয়েছে রিগ মেশিন, মাদ পাম্প, জেনারেটর, ড্রিলিং, রড, কেসিং ও অন্যান্য যন্ত্রপাতি।বাংলাদেশ ভূ-তাত্ত্বিক জরিপ অধিদফতরের (জিএসবি) মহাপরিচালক রেশাদ মাহুমদ ইকরাম আলী জানান, ইতোমধ্যেই ড্রিলিং কার্যক্রমের জন্য রিক মেশিন ও যন্ত্রাংশ সেটিং করা হয়েছে। রিক মেশিন দিয়ে মাটির নিচে প্রায় ৭’শ ফুট থেকে ৪ হাজার ফুট গভীর করে কূপ খননের মাধ্যমে নিরীক্ষা অভিযান চালানো হবে।

তিনি আরও জানান, এখানে কি ধরনের খনিজ সম্পদ রয়েছে তা পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্যই এই ড্রিলিং কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। অনুসন্ধানে রৌমারীর এই অ লে কয়লা অথবা মূল্যবান কোনো খনিজ সম্পদ পাওয়া গেলে তার পরিমাণ উল্লেখ করে পরবর্তীতে সেগুলো কাজে লাগানোর জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগকে জানানো হবে।