নাটকীয়তার পর রোনালদোর পেনাল্টি গোলে সেমিতে রিয়াল

আপডেটঃ ৯:৩৩ পূর্বাহ্ণ | এপ্রিল ১২, ২০১৮

ক্রীড়া ডেস্ক :আগের রাতে রোমে বার্সেলোনার বিপক্ষে প্রত্যাবর্তনের অসাধারণ এক গল্প লিখেছিল রোমা। তিন গোলের ব্যবধান ঘুচিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে ওঠে ইতালিয়ান ক্লাবটি। ২৪ ঘণ্টা পেরোতে না-পেরোতেই মাদ্রিদে কাল আরেক ইতালিয়ান ক্লাব জুভেন্টাসও ঘুরে দাঁড়ানোর আরেকটি রূপকথার জন্ম দেওয়ার আভাস দিচ্ছিল। তবে যোগ করা সময়ে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পেনাল্টি গোলে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে উঠেছে রিয়াল মাদ্রিদ।

শেষ আটের প্রথম লেগে জুভেন্টাসের মাঠ থেকে ৩-০ গোলে জিতে এসেছিল রিয়াল। সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে কাল ম্যাচের আধা ঘণ্টা বাকি থাকতেই ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় জুভেন্টাস। ম্যাচ গড়াচ্ছিল অতিরিক্ত সময়ের দিকে। কিন্তু যোগ করা সময়ে রিয়াল মাদ্রিদ পায় পেনাল্টি। লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন জুভেন্টাস গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি বুফন। বার্নাব্যুতে অনেক নাটকীয়তার পর রোনালদোর পেনাল্টি গোলেই দুই লেগ মিলিয়ে ৪-৩ গোলের অগ্রগামিতায় টানা অষ্টমবারের মতো চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালের টিকিট পায় রিয়াল।

অলৌকিক কিছু করে দেখাতে প্রতিপক্ষের মাঠে শুরুতেই গোল দরকার ছিল জুভেন্টাসের। সেটি তারা পেয়েও যায়। প্রায় মাঝ মাঠে বল পেয়ে এগিয়ে গিয়ে স্যামি খেদিয়াকে পাস দেন ডগলাস কস্টা। জার্মান মিডফিল্ডারের ক্রস থেকে জোরালো হেডে লক্ষ্যভেদ করেন মারিও মানজুকিচ। ঘড়ির কাঁটায় ম্যাচের তখন ৭৬ সেকেন্ড!

করিম বেনজেমার জায়গায় শুরুর একাদশে নেমেছিলেন গ্যারেথ বেল। ওয়েলস তারকার একটি শট ঠেকিয়ে দেন বুফন। ফিরতি বল ব্যাকহিলে জালে পাঠানোর চেষ্টা করেছিলেন বেল। অল্পের জন্য বল লাগে পাশের জালে। ১৩ মিনিটে রোনালদোর পাস থেকে বল জালে জড়িয়েছিলেন ইসকো। কিন্তু অফ সাইডের কারণে গোলটি বাতিল করেন রেফারি।

উল্টো ৩৭ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফেলে জুভেন্টাস। দ্বিতীয় গোলটাও মানজুকিচের। ডান দিক থেকে স্টেফান লিশ্টস্টাইনারের ক্রসে আরেকটি দারুণ হেডে বল জালে পাঠান ক্রোয়েশিয়ার এই ফরোয়ার্ড। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে গোল পেতে পারত রিয়াল। কিন্তু টনি ক্রসের ফ্রি-কিক থেকে রাফায়েল ভারানের হেড লাগে ক্রসবারে।

দ্বিতীয়ার্ধে কাসেমিরো ও বেলের বদলি হিসেবে মার্কো অ্যাসেনসিও ও লুকাস ভাসকেজকে মাঠে নামান রিয়াল মাদ্রিদ কোচ জিনেদিন জিদান। ৫৮ মিনিটে রোনালদোর শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান বুফন। পরের মিনিটে গঞ্জালো হিগুয়েনের শট ঠেকান রিয়াল গোলরক্ষক কেইলর নাভাস।

কিন্তু ৬০ মিনিটে ভুলটা করে বসেন নাভাস। কস্তার ক্রস ঠিকমতো ধরে পারেননি কোস্টারিকার এই গোলরক্ষক। তার হাত ফসকে বেরিয়ে যাওয়া বল জালে পাঠিয়ে দেন ব্লেইস মাতুইদি। ২০১৬ সালের নভেম্বরের পর চ্যাম্পিয়নস লিগে এই প্রথম গোল পেলেন ফরাসি মিডফিল্ডার। দুই লেগ মিলিয়ে স্কোরলাইন তখন ৩-৩! ম্যাচে টানটান উত্তেজনা।

১২ মিনিট পর ইকসোর প্রচেষ্টা রুখে দেন বুফন। যোগ করা সময়েও রিয়ালের আক্রমণগুলোকে ভালোভাবেই সামাল দিচ্ছিল জুভেন্টাস। কিন্তু ৯৩ মিনিটে গোলমুখের সামনে ভাসকেজকে ফাউল করে বসেন মেধি বেনাতিয়া। তাতে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সিদ্ধান্ত মানতে না পেরে রেফারির সঙ্গে তর্কে জড়ান বুফন। ইংলিশ রেফারি মাইকেল অলিভির সরাসরি লাল কার্ড দেখান জুভেন্টাস অধিনায়ককে।

৪০ বছর বয়সি এই গোলরক্ষক চ্যাম্পিয়নস লিগ ক্যারিয়ারে ১১৭ ম্যাচে প্রথমবারের মতো দেখলেন লাল কার্ড। সম্ভবত তার শেষ চ্যাম্পিয়নস লিগ ম্যাচও। গত অক্টোবরেই যে বুফন জানিয়েছিলেন, ফাইনাল জিততে না পারলে এটি হবে তার শেষ চ্যাম্পিয়নস লিগ।

যোগ করা সময় ছিল তিন মিনিটের। কিন্তু অনেক নাটকের পর রোনালদো পেনাল্টি কিক নিতে আসেন ৯৭ মিনিটে। ডান পায়ের জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন পর্তুগিজ তারকা। গোল করেই জার্সি খুলে ফেলেন পাঁচবারের ফিফা বর্ষসেরা খেলোয়াড়। বার্নাব্যুতে ততক্ষণে শুরু হয়ে গেছে উৎসব। ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়ে গেছে জুভেন্টাসের।