নেত্রকোনায় জেলা শহরে শৌচাগারের সংকটে গণমানুষের ভোগান্তি

আপডেটঃ ৮:৫৮ পূর্বাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ০৫, ২০১৮

মোনায়েম খান, সি এন এ নিউজ, নেত্রকোনা :নেত্রকোনা জেলা শহরের শৌচাগারের অভাবে আগন্তকরা শহরের অলি গুলিতে যে খানে খুশি সেখানে দাড়িয়ে বা বসে প্রাকৃতিক কাজ সম্পুন্ন করছে।শহরের কয়েকটি স্থানে বাসা বাড়ি ও ব্যবসা পতিষ্ঠানে ব্যবসা করা ও বসবাসের অযোজ্ঞ হয়ে পরছে। রাস্তা ঘাটে দাড়িয়ে প্রাকৃতিক কাজ সম্পুন্ন করা তা একটা বিব্রতকর অবস্থার মুখোমখি হতে হয়। এতে দুরগন্ধ এলাকায় ছড়িয়ে পরছে। আশঙ্খা করা হচ্ছে এ পরিস্তিতিতে ডায়রিয়াসহ নানান রোগে শিশু কিশুর বৃদ্ধ আক্রান্ত হবে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়।ছোটবাজারস্থ শহীদ মিনারের সামনে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পিছনে ,আরাম ভাগ, মালনী ,অজহর রোর্ডসহ শহরের অলিগুলিতে ও বিতরে শৌচাগার না থাকার কারনে ব্যাবসায়ী,সাধারন মানুষের ভোগান্তি চরমে পৌচেছে।শহরে পৌর সভা কতৃপক্ষের কয়েকটি শৌচাগার থাকলেও সঠিক ভাবে রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে ব্যবহারের জন্য ক্রমশই অনুপযোগী হয়ে পরেছে।অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে সৃষ্টি হয়েছে।এরমধ্যে তেড়ীবাজার মোড়ে পৌরসভা অর্থায়নে একটি শৌচাগার নির্মাণ করা হয়েছে, পাচ বছরের বেশি সময় হলেও তা আজও জনসাধারনের ব্যবহারের জন্য উনমুক্ত করা হয়নি।অতছ নেত্রকোনা একটি জেলা শহর সেখানে প্রতিদিনেই হাজার হাজার মানুষ আসছে।অফিসের কাজে কেউ আসছে ব্যবসার কাজে।কেউ আসছে ক্রেতা হয়ে।সকলের প্রাকৃতিক কাজ সারতে মহাবিপাকে পড়তে হয়। এ বিষয়ে জেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি কৃষিবিদ ড. শওকত আকবর ফকির বলেন পরিবেশ রক্ষার জন্য সকলেই সচেতন হতে হবে। শুধু পৌরশহরে এই সমস্যা নয় এটা প্রতিটি এলাকার পাড়া মহল্লায় ও জানবাহন চালিত রাস্থায় শৌচাগার নির্মাণ করা জরুরী শৌচাগার নির্মাণ করা পরিবেশ রক্ষার জন্য একটি বিষেশ উদ্যেগ নিতে হবে। এতে মানুষের ভোগান্তিও কমে আশবে।