ফেসবুকে প্রশ্নপত্র : বরগুনায় ১৪০ স্কুলের পরীক্ষা বাতিল

আপডেটঃ ১০:০৬ পূর্বাহ্ণ | ডিসেম্বর ১৭, ২০১৭

বরগুনা প্রতিনিধি : সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেআবারওপ্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ায় অভিযোগে বরগুনার বেতাগী উপজেলায় ১৪০টি স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির রবিবারের (১৭ ডিসেম্বর) পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুই সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী তিন দিনের মধ্যে কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

শনিবার (১৬ ডিসেম্বর) বিকেলে প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার পর বরগুনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ডিপিও) আবদুল মজিদ বেতাগী উপজেলা শিক্ষা অফিসে গিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে সভা করে এ সিদ্ধান্ত নেন।

আবদুল মজিদ জানান, শনিবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়টি নজরে আসলে তাৎক্ষণিকভাবে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস রোববারে অনুষ্ঠিতব্য দ্বিতীয় শ্রেণীর বার্ষিক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। গণিত পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হওয়ায় রোববারের পরীক্ষা স্থগিত করা হলেও একই পরীক্ষা আগামী ২১ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার নতুন প্রশ্নে এই পরীক্ষা নেয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, এ ঘটনায় দুই সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে রয়েছেন, বেতাগী উপজেলার ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা কর্মকর্তা (এটিও) আবদুস সালাম ও বেগাতী উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাক্টর এ কে এম শহীদুল্লাহ। এই কমিটিকে আগামী তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য বলা হয়েছে।

চলমান বার্ষিক পরীক্ষায় বারবার প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়া ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বরগুনার সচেতন নাগরিক সমাজ। তারা এ প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান। সেই সাথে প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়ে জড়িতদের তদন্ত করে আইনের আওতায় আনার দাবীও জানান।

প্রসঙ্গত, ৯ ডিসেম্বর বরগুনা সরকারি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের গণিতের প্রশ্নপত্র ফাঁস হয় এরপর পর্যায়ক্রমে ১২ ও ১৩ ডিসেম্বর বরগুনা সদর উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম ও চতুর্থ শ্রেণির তিন বিষয়ের বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়। প্রশ্ন ফাঁসের সত্যতা পেয়ে সদর উপজেলার ২৪৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষা স্থগিত করে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস।