রাজীবপুরে গার্মেন্টকর্মীকে ‘গণধর্ষণের’ পর হত্যা

আপডেটঃ ২:১৭ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ০৭, ২০১৭

মোস্তাফিজুর রহমান তারা,রৌমারী (কুড়িপ্রাম) সঙবাদদাতাঃকুড়িগ্রামের রাজিবপুরে সাবিনা ইয়াসমিন (৩০) নামের এক গার্মেন্টকর্মীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে। গত বুধবার ৬ ডিসেম্বর পশ্চিম নয়াচর ব্রহ্মপুত্র নদের চরে ঢুষমারা থানা পুলিশ সাবিনার লাশ উদ্ধার করেছে।

নিহত গার্মেন্টকর্মী সাবিনা ইয়াসমিন রাজিবপুর উপজেলার সন্ন্যাসীকান্দি চরের দিনমজুর মোসলেম উদ্দিনের মেয়ে। তিনি ঢাকায় একটি গার্মেন্ট কারখানায় চাকুরি করতেন।
মোসলেম উদ্দিন বলেন, ‘আমার মেয়ের বিয়ে হয়েছিল দেয়ানগঞ্জ উপজেলার সানন্দবাড়ি এলাকার মধ্যপাড়া গ্রামের বাদশার সাথে। বিয়ের কিছুদিন পর যৌতুকলোভী স্বামী বাদশা আমার মেয়েকে তাঁর বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এরপর সংসারে চরম অভাব-অনটনের কারণে সাবিনা ঢাকায় একটি গার্মেন্ট ফ্যাক্টরিতে চাকরি শুর করেন। কয়েক দিন আগে মেয়ে ফোন করে বাড়ি আসার কথা বলেছিল। এরপর লাশ পেলাম। তবে সুত্রে জানাযায়, প্রায় ৮ মাস পুর্বে সাবিরার সাথে পশ্চিম নয়ারচর গ্রামের লিটন মিয়ার সাথে নারী কেলেঙ্কারীর ঘটনা ঘটে। এতে স্থানীয়ভাবে শালিশি বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে শালিশের সিদ্ধান্ত মোতাবেক লিটন মিয়াকে দোষী সাবস্ত করে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এলাকাবাসীর ধারনা লিটন গং অথবা স্বামী বাদশা কতৃক এমন হত্যা কান্ড ঘটতে পারে ।
’ এব্যাপারে ঢুষমারী থানার ইনর্চাজ মাসুদ পারভেজ জানান, সাবিনা ইয়াসমিন এর লাশ উদ্ধার করে সুরত হাল রিপটের পর ময়না তদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। এনিয়ে সাবিনার বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামী করে হত্যা মামলা করেছেন।তবে সাবিনাকে হত্যা বা ধর্ষণের বিষয়টি তদন্তের স্বার্থে কিছু বলা যাচ্ছেনা