নরসিংদীতে চাঞ্চল্যকর শিশু বাইজিদ হত্যার মামলা উঠিয়ে নিতে ঘাতক চক্রের প্রননাশের হুমকিতে বাদীর পরিবার নিরাপত্তাহিনতায়

আপডেটঃ ১১:৩৫ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ১৮, ২০১৭

এম এ সারাম রানা, নরসিংদী:নরসিংদীতে চাঞ্চল্যকর শিশু শির্ক্ষাথী বাইজিদ হত্যার আসামীরা মামলা উঠিয়ে নিতে বাদীর পরিবারকে বিভিন্ন উপায়ে হুমকি- ধমকিসহ প্রাননাশের ভয় দেখিয়ে আসছে। ৩য় শ্রেণীতে অধ্যয়নরত শির্ক্ষাথী বাইজিদকে পরিকল্পিতভাবে ভাগিনা রাসেলের সহযোগীতায় খুনি খালু মতিউর রহমান অপহরনশেষে শ্বাসরোধের মাধ্যমে ণৃশংস কায়দায় হত্যাশেষে একটি ডোবায় কচুরিপানা দিয়ে লাশ ডেকে পালিয়ে যায়। ২০১৫ সালের ৫ ফেব্রুয়ারী সন্ধায় ঢাকা- সিলেট মহাসড়কের নরসিংদীর বাসাইল এলাকা সংলগ্ন আ: কাদির মোল্লা সিটি কলেজের নিকটে খালু মতিউর রহমান শিশু বাইজিদকে নির্মমভাবে হত্যা করে। নরসিংদী সদর উপজেলার চরাঞ্চলীয় নজরপুর ইউনিয়নের কালাইগবিন্দপুর গ্রামের খলিলুরহমানের শিশু পুত্র নিহত বাইজিদ জেলা শহরের সাটিরপাড়া বকুলতলা নুরিয়া হাফিজিয়া মাদ্রসায় আবাসিক শির্ক্ষাথী হিসেবে ৩য় শ্রেণীতে লেখাপড়া করতো। বি-বাড়ীয়া জেলার বাঞ্চারামপুর উপজেলার সোনারামপুর গ্রামের আ: হান্নানের পুত্র ঘাতক খালু মতিউররহমান পরিকল্পিতভাবে পারিবারিক বিরুদের জের হিসেবে আপন ভাইগ্না রাসেলের মাধ্যমে মাদ্রাসায় অধ্যায়নরত শিশু শির্ক্ষাথী নিহত বাইজিদকে কৌশলে অপহরন করে নিয়ে আসে।ঘাতক মামার নির্দেশানুযায়ী ভাইগ্না রাসেল বাইজিদকে মাদ্রাসা থেকে জেলা শহরের পৌরসভার সম্মুখস্থ গোলচত্বরে এনে দিয়ে বাড়ীতে চলে য়ায়। এরপর একইদিন সন্ধায় ঘাতক খালু অপহরনের ধারাবাহিকতায় শিশু বাইজিদকে ঘটনাস্থলে নিয়ে হত্যাশেষে লাশটি গুমকরে পালিয়ে যায়। ঘটনার ৪ দিন পর ৯ ফেব্রুয়ারী চাঞ্চল্যকর বাইজিদ হত্যায় পিতা খলিলুরহমান বাদী হয়ে নরসিংদী সদর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে।যার মামলা নং ৩৩(২)১৫।নরসিংদী সদর মডেল থানা পুলিশ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারশেষে আদালতে প্রেরন করলে ১৬৪ ধারার জবান বন্দীতে চাঞ্চল্যকর শিশু অপহরন ও হত্যার দায় স্বীকার করে।পুলিশ উপরোক্ত ঘটনায় পকৃত অপরাধী ঘাতক খালু মতিউর রহমান ও সাহেপ্রতাব এলাকার আ: মতিনের পুত্র ভাইগ্না রাসেলকে অভিযুক্ত করে বিজ্ঞ আদালতে র্চাজসিট দাখিল করে।আসামী মতিউর নরসিংদী কারাগারে আটক থাকলেও মামলার প্রধান আসামী ভাইগ্না রাসেল সম্প্রতি জামিনে কারাগার থেকে মুক্তিপেয়ে মামলা উঠিয়ে নিতে বাদীর পরিবারকে বিভিন্ন ভয় -ভীতিসহ প্রাননাশের হুমকি প্রদান করায় বাদীর পরিবার এখন চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।