রাজধানীতে গণপরিবহনের স্বল্পতায় ভোগান্তি

আপডেটঃ ৫:২৬ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ১২, ২০১৭


নিজস্ব প্রতিবেদক:
সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপির সমাবেশকে কেন্দ্র করে রাজধানী‌র সড়কগুলোতে গণপরিবহ কম চলাচল করছে। এতে ভোগান্তিতে প‌ড়ছেন নগরবাসী।

রাজধানীর মোহাম্মদপুর, কলাবাগান, সায়েন্স ল্যাব, নিউ মার্কেট, আজিমপুর, মিরপুর, ফার্মগেটসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে সড়কে গণপরিবহনের সংখ্যা স্বাভাবিকের তুলনায় কম। ফলে মানুষ গন্তব্যে যেতে ভাড়ায় চালিত আটোরিকশা, রিকশা, ভ্যান ব্যবহার করছেন। অনেকে পায়ে হেঁটে গন্তব্যে যাচ্ছেন। এতে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তাদের।

যাত্রীরা বলছেন, সকালের দিকে সড়কে কিছু বাস দেখা গেলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তা কমে যায়।

নিজস্ব প্রতিবেদক আসাদ আল মাহমুদ যাত্রাবাড়ী এলাকা ঘুরে জানিয়েছেন, ওই এলাকায় বিভিন্ন রুটের বাস বন্ধ রয়েছে। সকালে কিছু বাস চলছিল। তবে সেগুলোর মধ্য থেকে যারা বিএনপির সমাবেশে যাচ্ছিলেন তাদের নামিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে তার কাছে অনেকে অভিযোগ করেছেন।

তরঙ্গ পরিবহনের বাসচালক আব্দুল মতিন বলেন, সকালে এক ট্রিপ দেওয়ার পর স্ট্যান্ড সুপারভাইজার বাস বন্ধ রাখতে বলেন। তাই বাস বন্ধ রেখেছি। আজ আবার কখন চালাব তা জানি না।

এটিসিএল বাসের সহকারী হেলাল বলেন, বাস চালানোর ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আছে। তারপরও বের হইছি। রাস্তায় বাস কম, তারপরও এত জ্যাম! মনে হয়, আজকের গাড়ি ভাড়াও উঠবে না। আমরা কী খাব?

ধানমন্ডি এলাকার ব্যবসায়ী মতিন খসরু বলেন, গণপরিবহন নেই। যা আছে তা মানুষে ঠাসা। আবার রাস্তায় গাড়ি চলছে ধীর গতিতে। তাই শেষ ভরসা পায়ে হাঁটা।

এদিকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেছেন, তারা সকাল থেকে খবর পাচ্ছেন যে, বিভিন্ন দিকে রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে যেন নেতা-কর্মীরা সমাবেশে যোগ দিতে না পারেন।

বিএন‌পির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাস‌চিব রুহুল ক‌বির রিজভী বলেন, শুনতে পাচ্ছি, বিভিন্ন স্থানে গণপরিবহন বন্ধ করে দিয়েছে। কিন্তু তাতে কোনো লাভ হবে না। দুপুরের পর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনতার ঢল রোধ করতে পারবে না সরকার।

উল্লেখ্য, রোববার দুপুর দেড়টার দি‌কে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ শুরু হয়েছে। কিছুক্ষ‌ণের ম‌ধ্যেই সমা‌বে‌শস্থ‌লে উপস্থিত হ‌বেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।