দেশকে নিয়ে আর কত ষড়যন্ত্র হবে

আপডেটঃ ৫:০২ অপরাহ্ণ | আগস্ট ২৬, ২০১৭

মোনায়েম খান, সি এন এ নিউজ, নেত্রকোনা ঃ একটি চক্রান্তে স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারসহ সকলকে আমরা হাড়িয়েছি। নতুন করে। আর কোন ষড়যন্ত্রে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হাড়াতে চাইনা। মীর জাফরের বিশ্বাসঘাকতায় বাংলার নবাবকে হাড়িয়ে যে ক্ষতি হয়েছে তা আর কোন দিন পূরন হবেনা। বাঙালি জাতি শত শত বৎসর জাযাবরের মত জীবন যাপন করেছে। শুধু তাই নয়। বাংলার অরিশ্যা বিহার সহ কয়েকটি প্রদেশ নিয়ে আজ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হত। সব কিছু হাড়িয়ে যখন আল্লাহর অশেষ রহমতে বাংলার মানুষের মুক্তির বাহক হয়ে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন হল। তখন বাঙালি জাতি নতুন করে যখন স্বপ্ন দেখতে শুরু করল তখনেই। মীর জাফরের দল, কিছু সেনা অফিসার বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারকে হত্যাকরে।পাকিস্থানের সাজানো সরকার বানিয়ে শাসন ষোসন করতে ছেয়েছিল। আর কালের পরিবত্বে তা বিএনপি সরকার করেছে। মন্ত্রীপরিষদের দায়িত্ব প্রাপ্ত কয়েকজন মন্ত্রীত্ব পদ রাজাকারদের দিয়েছিল। তা হলে বুঝতে হবে মীর জাফররা এখন পর্যন্ত সক্রিয়। এরা দেশ বিদেশে চক্রান্তের সাথে লিপ্ত। এর মধ্যে এখন নতুন করে। রাষ্ট্রের ঘাড়ে মোসাদের পেতাতœদের ছায়া পড়েছে। এটা সরাতে হবে। আজ আমার একটা ইতিহাস মনে পড়ে গেল। ফিলিস্থিনী এক যুবক তার বেকার জীবনের কিছু কথা এবাবে প্রকাশ করল যে জর্ডানের স¦রাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ে চাকুরির জন্য বেশ কয়েক বার ইন্টারবিউ দিল কিন্তু চাকুরী হয়না। টাকার অভাবে ফোটপাত থেকে একটি টি র্শাট ক্ষয় করল যার বিষয়ে তার জানা ছিল না। পরবর্তীতে আবার কয়েক মাস পর একই নিয়মে সেই দপ্তরে ইন্টারবিউ দিতে গেল। ঐ দিন মন্ত্রনালয়ের প্রধান এগিয়ে এসে তাকে সালাম দিয়ে বিতরে নিয়ে। এ্যাপারম্যান্ট কার্ড দিয়ে কাজে যোগদান করার কথা বলে বিদায় করে দিল। এই নিয়ে তার বিতরে একটা সন্দেহ সৃষ্টি হল। চাকুরি করার কয়েক মাস পর। হঠাৎ বস ঢাকলেন কি ব্যাপার তোমার পরনে যে টি র্শাট দেখতে পেতাম এটা কোথায়। তখন সে বলল স্যার টাকার অভাবে ফোট পাট থেকে কম টাকায় এ টি র্শাট ক্ষয় করে ছিলাম। এখন টাকা হয়েছে এটি ফেলে দিয়েছি। তখন স্যার বললেন যাও তোমার আর চাকুরী করতে হবেনা।অত্যাৎ এই টি র্শাট এর গায়ে ছিল এটা মোসাদের চিহৃত একটি মনোগ্রাম মার্কা টি র্শাট। এই নিয়ে সেই যুবক গবেষনা শুরু করল। তখন বেরিয়ে আসল স্যারের আসল পরিচয় তিনি হলেন। মোসাদের এজেন্ট ও তাবেদার। তার কাজ হল বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে এ রাষ্ট্রকে পেতাতœদের হাতে তুলে দেওয়া। তা হলে বিচার বিভাগের স্যার আপনার মূল পরিচয় কি ? আপনাকে মিসকোট করবনা কেন। যে মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও বঙ্গবন্ধুর অবিসংবাদিত নেতৃত্বকে নিয়ে মন্তব্য করে। সংসদকে কটাক্ত করে। বাংলাদেশকে পাকিস্তানের সাথে তুলনা করে। তাকে আর দেশবাসী এই দায়িত্বে দেখতে চায়না। প্রতি জেলা উপজেলায় রাজনীতিবিদ ও সাধারন মানুষ আপনার অপসারণ চেয়ে আন্দোলন করবে। চলন্ত ট্রেইন বিপদের দিকে গেলে। লাল নিশান দেখালে মনে হয় ট্রেইন থেমে যায়। মনে রাকবেন জাতির পিতার জন্ম হয়েছিল বলেই এদেশের ১৬ কোটি মানুষ আজ স¦াধীন দেশে বসবাস করছে ও তার সুযোগ্য কন্যা জন নেত্রী শেখহাসিনা প্রধানমন্ত্রী হওয়াতে বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন হয়েছে ও উন্নয়নের স্বপ্ন দেখছে।