বরগুনায় আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস পালিত ¬¬¬

আপডেটঃ ১১:০৩ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ০৯, ২০১৫

আবুল হাসান বেল্লাল, বরগুনা প্রতিনিধিঃ ‘জাগ্রত বিবেক, দুর্জয় তারুণ্য-দুর্নীতি রুখবেই’এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ০৯ ডিসেম্বর ২০১৫ বুধবার বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), বরগুনা আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উদযাপন করেছে। সনাক ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি (দুপ্রক) বরগুনা’র আয়োজনে জেলা প্রশাসন বরগুনার সহযোগিতায় সকাল ৯টায় বরগুনা জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন ও পরবর্তীতে একটি র‌্যালি বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে শিল্পকলা একাডেমিতে শেষ হয়। র‌্যালি শেষে সনাক বরগুনা’র সভাপতি আলহাজ্ব আবদুর রব ফকির এর সভাপতিত্বে আয়োজিত দিবসের তাৎপর্যের উপর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বরগুনার জেলা প্রশাসক মীর জহুরুল ইসলাম এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বরগুনার পুলিশ সুপার বিজয় বসাক পিপিএম, জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মেহেরুন নাহার মুন্নি, জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. দুলাল কৃষ্ণ রায়, দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারি উপ-পরিচালক নীল কমল পাল, জেলা মু্িক্তযোদ্ধা সংসদ বরগুনা’র কমান্ডার আলহাজ্ব আবদুর রশিদ ও প্রেস ক্লাব বরগুনা’র সভাপতি হাসানুর রহমান ঝন্টু। আলোচনার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন দুপ্রক বরগুনা’র সহ-সভাপতি এড. সঞ্জিব দাস এবং দিবসের তাৎপর্যের উপর ধারণাপত্র পাঠ করেন সনাক সদস্য এড. মো: আনিসুর রহমান। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সনাক বরগুনা’র সদস্য মনির হোসেন কামাল, দুপ্রকের সভাপতি রফিক উদ্দীন আহমেদ এবং ডা. মনিজা। আলোচনায় বর্তমান সরকারের নির্বাচনী অংঙ্গীকারে বাংলাদেশে দুর্নীতিকে কার্যকরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা ও দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)’কে স্বাধীন ও কার্যকর করার বিষয়টি উল্লেখ করেন এবং এই লক্ষ্যে সরকার বেশকিছু ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে বলে উল্লেখ করেন। কিন্তু দুদক, প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগসহ আইন প্রয়োগকারী অন্যান্য সংস্থাসহ আইনের শাসন ও জবাবদিহিমূলক সরকার প্রতিষ্ঠায় নিবেদিত প্রতিষ্ঠানসমূহকে দলীয় রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত করতে সুনির্দিষ্ট কোনো পদক্ষেপ গৃহীত হয়নি বলে আলোচনায় উঠে আসে।
পুলিশ সুপার বরগুনা তার বক্তব্যে দুর্নীতিবিরোধী আন্দোলনের সকলকে সহযোদ্ধা হিসেবে উল্লেখ করেন। দুর্নীতি সাধারণ মানুষ করে না বলে উল্লেখ করেন বরং যাদের একটি নির্দিষ্ট পদ ও পদবী আছে তারাই দুর্নীতি করে। আমাদের সবাইকে মিলে এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে হবে। তিনি সমাজের শিক্ষিত মানুষদেরকে আরো সচেতন ও নীরবতা ভেঙ্গে সরব হয়ে দুর্নীতি বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের আহ্বান জানান। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে দুর্নীতি প্রতিরোধে ব্যক্তি পর্যায়ে থেকে পারিবারিক পর্যায়ে সচেতনতা বৃদ্ধি ও ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলার আহ্বান জানান। তিনি ভবিষ্যত প্রজন্মকে দুর্নীতিবিরোধী চেতনায় উদ্বুদ্ধ করতে স্কুল কলেজ পর্যায়ে পাঠ্যপুস্তকে দুর্নীতিবিরোধী প্রবন্ধ অর্ন্তভূক্তি ও চর্চার আহ্বান জানান।
০৯ ডিসেম্বর রোকেয়া দিবস হওয়ায় বক্তারা বেগম রোকেয়ার কর্মজীবন তুলে ধরেন এবং নারী উন্নয়নে সকলকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানের সঞ্চালকের ভূমিকা পালন করেন টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার মো: রোকনুজ্জামান। উল্লেখ্য ০৮ ডিসেম্বর ২০১৫ ইয়েস সদস্যরা বরগুনার বিভিন্ন স্কুল ও কলেজে দুর্নীতিবিরোধী স্টিকার ক্যাম্পেইন পরিচালনা করে।