কুয়াকাটায় আটকা পড়েছে ২ হাজার পর্যটক

আপডেটঃ ৯:৩৯ পূর্বাহ্ণ | মার্চ ০১, ২০১৭

সি এন এ  নিউজ,পটুয়াখালী: বাস শ্রমিকদের আকস্মিক ধর্মঘটের কারণে সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটায় আটকা পড়েছেন প্রায় ২ হাজারেরও বেশি পর্যটক। এর আগেও বরিশাল-পটুয়াখালী-বরগুনা মালিক শ্রমিক সমন্নয় পরিষদ হঠাৎ করে ধর্মঘট ডাকায় পর্যটকরা এভাবেই আটকা পড়েন।

বিভিন্ন দাবি দাওয়া নিয়ে এরকম আকস্মিক ধর্মঘটের ফলে সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটায় আগত পর্যটন শিল্পের উপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে।

সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটা থেকে ঢাকাসহ অন্যান্য জেলাসমূহের যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম সড়ক পথ হওয়ায় পর্যটকদের উপর এর প্রভাবটা আরও বেশি লক্ষণীয়। তবে দ্রুত সময়ের মধ্যে বিষয়টি সমাধানের জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন পর্যটন সংশ্লিষ্টরা।

কুয়াকাটায় আগত পর্যটক আছলাম মিয়া জানান, আমরা কুয়াকাটায় দু’দিন থাকার জন্য আসছিলাম। আজ সকালে ঢাকায় ফেরার কথা। কিন্তু সকাল থেকেই শুনছি বাস ধর্মঘট। আমাদের অর্থনৈকি সমস্যাও দেখা দিয়েছে। এ অবস্থায় সরকার দ্রুত ধর্মঘট প্রত্যাহারের ব্যবস্থা নিলে ভালো হয়।

পর্যটক মঈন সরোয়ার কিয়াম বলেন, দিন দিন আমরা বাস মালিক সমিতির কাছে জিম্মি হয়ে পড়ছি। এমন ছোট খাটো ঘটনায় তারা ধর্মঘটের মত জনদুর্ভোগমূখী কর্মসূচি দিচ্ছে। এর ফলে আমাদের অর্থনীতির উপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। এই ধর্মঘটের প্রথা বন্ধ হওয়া উচিৎ।

এদিকে, বাস বন্ধ থাকায় কাঁচামাল না আসার যুক্তি দেখিয়ে খাবারের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে বলেও জানান আগত অনেক পর্যটক।

পটুয়াখালী বাস টার্মিনালে অবস্থানকালে কথা হয় সোবাহান নামে এক বাস শ্রমিকের সঙ্গে।

তিনি জানান, কোনো ড্রইভার গলায় দড়ি দিয়া গাড়ি চালাইবো না। কারণ আমরা যেটা শুনছি খুলনায় দুর্ঘটনায় লোক মারা গ্যাছে। কোর্ট বোলে রায় দেছে এক কোটি টাকা জরিমানা, সারা জীবন ওই রহম পইড়া থাকবে। এ কারণে সব জেলায় গাড়ি বন্ধ।

হোটেল বিচ হ্যাভেন ইনর্চাজ বায়জীদ মল্লিক  বলেন, গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকায় অধিকাংশ বুকিং বাতিল হয়েছে। যাদের সিডিউল আছে, বুকিং আছে, অ্যাডভান্স করেছে কিন্তু ধর্মঘটের কারণে তারা আসতে পারছে না। এ সপ্তাহে আমাদের ব্যবসা মন্দা যাচ্ছে।

হোটেল বনানী প্যালেসের আবদুল্লাহ্ আল মাহামুদ জানান, ধর্মঘটের কারণে ব্যবসা বন্ধের পথে। পর্যটক আসতে পারছে না। যারা আছে তারাও নিজ গন্তব্যে যেতে পারছে না।

কুয়াকাটা টুরিস্ট পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার মো. আবদুল করিম বলেন, কুয়াকাটায় পর্যটক সংখ্যা কিছুটা কম। এরপরেও প্রায় ২ হাজারের অধিক পর্যটক আটকা পরেছে।